বহিঃশত্রুর যে কোনো আগ্রাসন প্রতিহত করতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সম্পূর্ণ প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। অনুশীলনের মাধ্যমে পেশাগত জ্ঞান ও দক্ষতার উন্নয়নই শীতকালীন অনুশীলনের লক্ষ্য বলে জানান তিনি।

গতকাল মঙ্গলবার শীতকালীন প্রশিক্ষণ এলাকা সাভার মিলিটারি ফার্মে ফিল্ড হেডকোয়ার্টার পরিদর্শনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

গত ১৯ ডিসেম্বর থেকে তিন সপ্তাহের জন্য নতুন উদ্যমে এ প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে জানিয়ে জেনারেল শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, জাতির গর্ব ও আস্থার প্রতীক সেনাবাহিনীর শীতকালীন এবারের প্রশিক্ষণের প্রতিপাদ্য 'যুদ্ধ পারঙ্গমতা, যুদ্ধোপযোগিতা ও রণপ্রস্তুতি প্রদর্শন'। এ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দেশকে বহিঃশত্রুর আগ্রাসন থেকে রক্ষায় নিজেদের প্রস্তুত করছে সেনাবাহিনী।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) জানায়, সেনাপ্রধানের পরিদর্শনের সময় চিফ অব জেনারেল স্টাফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান, কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল লেফটেন্যান্ট জেনারেল মো. সাইফুল আলম এবং জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিন কমান্ড লেফটেন্যান্ট জেনারেল আহম্মদ তাবরেজ শামস চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার ইন চিফ মেজর জেনারেল মুহাম্মদ যুবায়ের সালেহীন, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল খান ফিরোজ আহমেদ, চিফ কনসালট্যান্ট জেনারেল, অ্যাডহক কনস্ট্রাকশন সুপারভিশন কনসালট্যান্ট মেজর জেনারেল এ কে এম রেজাউল মজিদসহ সেনা সদরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, ডিফেন্স জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনসহ অন্যান্য গণমাধ্যমের ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

আইএসপিআর আরও জানায়, ২০১২ সালে সেনাবাহিনী পর্যায়ে শীতকালীন প্রশিক্ষণের পর গত বছর সেনাবাহিনী প্রধানের নির্দেশে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে প্রথমবারের মতো লজিস্টিকস এফটিএক্স এবং ১০ বছর পর এবার বড় পরিসরে প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে, যা সেনাবাহিনীর সক্ষমতা ও নির্ভরযোগ্য রণপ্রস্তুতির বাস্তব বহিঃপ্রকাশ।

সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, এ বছর শীতকালীন বহিরঙ্গন অনুশীলনটিতে অধিকতর বাস্তবধর্মী ও অভিনব জ্ঞানের প্রতিফলন ঘটানো হয়েছে। প্রশিক্ষণের প্রায় শেষ পর্যায়ে এসে আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে পারি, আমাদের এই শীতকালীন প্রশিক্ষণের মূল উদ্দেশ্য অর্জিত হয়েছে। আমরা এখন বিগত বছরের চেয়ে অধিক প্রশিক্ষিত ও প্রত্যয়ী।