পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী আবারও আন্দোলন করেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) অফিসার সমিতি। 

বুধবার বেলা ১২ টায় ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসানের নামফলক কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে দেন তারা। সেই সঙ্গে তারা মুখে কালো কাপড় বেধে রেজিস্ট্রার অফিসে নানা কর্মসূচি করেন।

নন টিচিং পদে শিক্ষক নিয়োজিত থাকায় রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালনে আন্তরিক নয় এই অভিযোগ এনে গত ১ জানুয়ারি থেকে আন্দোলনে নেমেছেন কর্মকর্তারা। আন্দোলনের দিন থেকে ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম মনিরুল হাসান ছুটিতে আছেন। ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রারের রুটিন দায়িত্ব পালন করছেন মাহবুব হারুন চৌধুরী। কর্মকর্তারা রেজিস্ট্রার পদে পূর্ণকালীন কর্মকর্তার নিয়োগ চেয়ে আবারও আন্দোলন করছেন। 

অফিসার সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ হামিদ হাসান নোমানী বলেন, একদিকে আমরা শুনছি ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মহোদয় পদত্যাগ করেছেন। অন্যদিকে বলা হচ্ছে মাহবুব হারুন চৌধুরী রুটিন দায়িত্ব পালন করছেন। কেন এধরনের ধোঁয়াশা থাকবে। আমরা রেজিস্ট্রার পদে পূর্ণকালীন কর্মকর্তার নিয়োগ চাই। রেজিস্ট্রার পদে কোনো রুটিন দায়িত্ব হতে পারে না।

অফিসার সমিতির সভাপতি রশীদুল হায়দার জাভেদ বলেন, আমরা চাইলেই কঠোর আন্দোলন করতে পারি। এটি না করে আমরা সুষ্ঠু ভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছি। এই যে ছাত্র রাজনীতির সাথে জড়িতরা ভাংচুর করলো, আমাদের অফিসারদের হুমকি দিল। এগুলোর নিরাপত্তা কোথায়? একটা বিশ্ববিদ্যালয় এভাবে চলতে পারে না।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে অফিসার সমিতির আন্দোলন চলমান। রেজিস্ট্রার পদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদে ভারপ্রাপ্ত নিয়োজিত থাকার বিষয়ে কয়েক দফা চিঠি পাঠিয়েছেন কর্তৃপক্ষকে। সর্বশেষ গত ২৪ জানুয়ারি কর্মসূচির ডাক দেন কর্মকর্তারা।