চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) চারুকলা ইনস্টিটিউটে বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) রাতে তল্লাশি চালিয়েছে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ। রাত সাড়ে ১২টার পর থেকে প্রায় দুইটা পর্যন্ত চলে এই তল্লাশি।

ইনস্টিটিউটের দুই পাশের ফটকের তালা ভেঙে প্রক্টরিয়াল বডি ও পুলিশ প্রবেশ করে ইনস্টিটিউটে। প্রায় ৫০ পুলিশ সদস্য ও প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়াসহ কয়েকজন সহকারী প্রক্টর ছিলেন তল্লাশিতে। ইনস্টিটিউটের ভেতরে অবস্থিত শিল্পী রশিদ চৌধুরী হোস্টেলের প্রতিটি কক্ষ ও শিক্ষক ক্লাবে তল্লাশি চালান তারা। 

তল্লাশির বিষয়ে জানতে প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়ার মুঠোফোনে কল করা হলে তিনি ধরেননি।

ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী জহির রায়হান বলেন, 'বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চাইলে যেকোনো সময় তল্লাশি চালাতে পারে। কিন্তু রাতের আঁধারে তল্লাশির পেছনে কী উদ্দেশ্য ছিল জানি না। তবে শিক্ষক ক্লাব থেকে সুনির্দিষ্ট জিনিস নেওয়ার জন্যই এই তল্লাশি হয়েছে বলে আমরা মনে করি। তার ওপর আমাদের আন্দোলনের ব্যানার-ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে।'

সহকারী প্রক্টর মুহাম্মদ ইয়াকুব বলেন, 'হোস্টেলে বহিরাগত থাকার অভিযোগে তল্লাশি চালানো হয়েছে। এছাড়া ডিসিপ্লিনারি কমিটির সিদ্ধান্ত ছিল নিয়মিত হলে তল্লাশি হবে। কিন্তু আন্দোলনের উপকরণ নষ্ট করা হয়নি।'