হোমল্যান্ড লাইফ ইনস্যুরেন্সের গ্রাহকদের ১০৪ কোটি টাকা লোপাটের ঘটনায় তদন্ত ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির ১৪ গ্রাহকের পক্ষে রহিমা আক্তার আজ রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিটটি দায়ের করেন।

রিটকারীদের আইনজীবী দিদারুল আলম দিদার সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

রিটে অর্থ সচিব, ইনস্যুরেন্স ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড রেগুলিটরি অথোরিটির চেয়ারম্যান, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান, হোমল্যান্ড ইনস্যুরেন্সের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানসহ প্রতিষ্ঠানটির ১৪ পরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি একটি জাতীয় দৈনিকে ‘পরিচালকদের প্রতারণার খপ্পরে হোমল্যান্ড লাইফ’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটির অর্থ আত্মসাৎ নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। এসব প্রতিবেদন যুক্ত করে হাইকোর্টে রিটটি দায়ের করা হয়েছে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিলেটের লন্ডন প্রবাসী পরিচালকদের একটি গ্রুপের প্রতারণার খপ্পরে পড়েছে হোমল্যান্ড লাইফ ইনস্যুরেন্স। গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নিতে সিলেটেই করা হতো পরিচালনা পরিষদের বৈঠক। এ গ্রুপটি কোম্পানির তহবিল থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে ১০৪ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। অনুসন্ধানে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে।

বোর্ড সভার কার্যবিবরণী জালিয়াতি, জমি কেনায় ভুয়া নথি তৈরি, কমিশন ও অন্যান্য খাতে খরচের ভুয়া ভাউচার তৈরি করে এ টাকা আত্মসাৎ করা হয়। নথিপত্রে দেখা গেছে, এই প্রতিষ্ঠানের নামে অস্তিত্ববিহীন জমি কেনা হয়েছে। এরপর সেই জমিতে মাটি ভরাট ও কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার নামে আরও অর্থ লোপাট করা হয়েছে।