ঢাকা রবিবার, ২৬ মে ২০২৪

যে পদ্ধতিতে চলছে সুন্দরবনের আগুন নেভানোর কাজ

যে পদ্ধতিতে চলছে সুন্দরবনের আগুন নেভানোর কাজ

সুন্দরবনে আগুন নেভানোর কাজ করছেন ফায়ার সার্ভিস। ছবি: ফায়ার সার্ভিস

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৫ মে ২০২৪ | ২০:১১ | আপডেট: ০৫ মে ২০২৪ | ২০:২৯

আগুনে পুড়ছে দেশের অক্সিজেনের হৃদপিণ্ড সুন্দরবন।  বনের চাঁদপাই রেঞ্জের আমুরবুনিয়া এলাকায় শনিবার বিকেলে আগুন লাগে। তাৎক্ষণিকভাবে আগুন নেভাতে কাজ শুরু করে বনবিভাগ ও গ্রামবাসী। দ্বিতীয় দিনে আজ রোববার ভোর থেকে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করে ফায়ার সার্ভিস। তাদের সহযোগিতায় বনবিভাগ ও স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকদের পাশাপাশি যোগ দেয় কোস্টগার্ড ও নৌ বাহিনীর দুটি আলাদা দল। পরে যোগ দেয় বিমান বাহিনীর একটি দল। তারা হেলিকপ্টারে করে দুপুর সাড়ে ১২টা থেকে বনভূমি এলাকায় আগুন নেভাতে পানি ছিটানো শুরু করে। আজ সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। তবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস।

পানি প্রাপ্তির জটিলতার কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে বেগ পেতে হয়েছে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস। তবে চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে তারা। 

যে প্রক্রিয়ায় আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ফায়ার সার্ভিস

নৌকায় পাম্প বসানো

ফায়ার সার্ভিস জানায়, রোববার ভোর ৬টা থেকে তারা আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ শুরু করে। এ জন্য ৬টি ফায়ার পাম্পের মাধ্যমে রিলে সিস্টেম বজায় রেখে সুন্দরবন সংলগ্ন খাল থেকে পানি নিয়ে অগ্নিনির্বাপণ কার্যক্রম শুরু করে তারা। তবে পাম্প বসানোর মতো কোনো জায়গা না থাকায় নৌকায় পাম্প বসানো হয়। এছাড়া চতুর্দিকে আগুন যেন ছড়িয়ে না পড়ে সে চেষ্টাও করতে থাকে ফায়ার সার্ভিস।

ভোলা ও শেওলা নদী থেকে পানি

সুন্দরবনের আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য ভোলা ও শেওলা নদী থেকে পানি আনার ব্যবস্থা করে ফায়ার সার্ভিস।

আগুন নেভাচ্ছে যে সংস্থাগুলো

ফায়ার সার্ভিস আরও জানায়, আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রতিষ্ঠানটির ৫৫ জন অফিসার ও কর্মচারী কাজ করছে। এছাড়াও অগ্নিনির্বাপণে নিয়োজিত ছিলেন ২৫০ জন স্বেচ্ছাসেবী। এর পাশাপাশি জেলা প্রশাসন, বন বিভাগ, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী, নৌবাহিনী, জেলা পুলিশের সদস্যরা আগুন নিয়ন্ত্রণে বিশেষভাবে কাজ করেন।

এখনও ধোঁয়া উড়ছে

সুন্দরবনের অগ্নিকাণ্ডকে ‘বুশ ফায়ার’ দাবি করে ফায়ার সার্ভিস জানায়, বনের বিভিন্ন অংশে বিচ্ছিন্নভাবে এখনও আগুন ছড়িয়ে আছে। প্রায় ২ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে আগুন ছড়িয়ে পড়েছে। এখনও ধোঁয়া দেখা যাচ্ছে। 

আগুন নিয়ন্ত্রণে প্রতিবন্ধকতা

পানির উৎস থেকে আগুনের দূরত্ব স্থানভেদে আড়াই কিলোমিটার। চলাচলের ব্যবস্থাও খুব দুর্গম। তাই জেলা প্রশাসন নিরাপত্তাজনিত কারণে রাতে কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে। আগামীকাল সোমবার ভোর সাড়ে ৫টা থেকে আবারও আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজ করা হবে বলে জানায় ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া সেল।

আরও পড়ুন

×