ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০২৪

সতর্ক করল ধর্ম মন্ত্রণালয়

হজযাত্রীদের মাধ্যমে জর্দা পাচারে এজেন্সি

হজযাত্রীদের মাধ্যমে জর্দা পাচারে এজেন্সি

ফাইল ছবি

বিশেষ প্রতিনিধি

প্রকাশ: ১৪ মে ২০২৪ | ২১:৫১

হজযাত্রীদের মাধ্যমে সৌদিতে নিষিদ্ধ জর্দার কার্টুন পাঠানোরও অভিযোগ উঠেছে হজ এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে। তা ছাড়া তারা সঠিকভাবে ফ্লাইট ডেটা সৌদি ই-হজ সিস্টেমে এন্ট্রি করছে না। এ কারণে সৌদি কর্তৃপক্ষ হজযাত্রীদের সঠিক তথ্য পাচ্ছে না। ফলে সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন হজযাত্রীরা। এসব ব্যাপারে হজ এজেন্সিগুলোকে সতর্ক করে চিঠি দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, গত ৯ মে হজ ফ্লাইট শুরু হওয়ার পর থেকে কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি ঘটে। এ নিয়ে সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের জেদ্দা এয়ারপোর্ট সার্ভিসের মহাপরিচালক আবদুর রহমান ঘানাম ১২ মে  বাংলাদেশ হজ অফিস, মক্কা ও জেদ্দার কর্মকর্তাদের সঙ্গে অনলাইনে সভা করেন। সভায় সৌদি পক্ষ থেকে হজ এজেন্সিগুলোর ‘ফ্লাইট ডেটা’ সঠিকভাবে ও নিয়মিত সৌদি ই-হজ সিস্টেমে এন্ট্রি না দেওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়। সঠিকভাবে হজ ফ্লাইট ডেটা সৌদি ই-হজ সিস্টেমে এন্ট্রি না করায় এজেন্সিগুলোকে সতর্ক করা হয় সভায়। কারণ ডেটা এন্ট্রি না করায় সৌদি কর্তৃপক্ষ হজযাত্রীদের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় তথ্য জানতে পারছে না। ফলে রোড-টু-মক্কার সুবিধা থেকে হজযাত্রীরা বঞ্চিত হচ্ছেন। এর জন্য দায়ী এজেন্সির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সভায় জানানো হয়।

চিঠিতে বলা হয়, হজযাত্রীদের সঙ্গে হজ গাইড বা এজেন্সির প্রতিনিধি ঠিকমতো থাকছেন না বলেও অভিযোগ রয়েছে এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে। ফলে হজযাত্রীরা সৌদিতে পৌঁছে সময়মতো অভ্যর্থনাকারী টিমও পাচ্ছেন না। তা ছাড়া অনেক এজেন্সি হজযাত্রীদের কাছ থেকে হজে যাওয়ার আগে কোরবানি বাবদ অর্থ নিচ্ছে। অথচ নিয়ম হলো, হজযাত্রী ইচ্ছামতো সৌদি সরকারের ব্যাংকের কুপন কিনে নিজ ব্যবস্থাপনায় কোরবানি সম্পন্ন করবেন। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পাওয়া গেলে ‘হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা আইন ২০২১’ অনুযায়ী এজেন্সিগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে চিঠিতে সতর্ক করা হয়।

৬ এজেন্সিকে শোকজ

হজযাত্রীদের ভিসা করার জন্য নির্ধারিত সময়ের পরও দুই দফায় সময় বাড়ানো হয়। এর পরও একজন হজযাত্রীর জন্যও ভিসা আবেদন করেনি পাঁচ এজেন্সি। আর একটি এজেন্সি মাত্র পাঁচজনের জন্য ভিসার আবেদন করেছে। ফলে এসব এজেন্সির ১ হাজার ৮৭০ হজযাত্রী শেষ পর্যন্ত হজ করতে পারবেন কিনা, তা নিয়ে গভীর অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। মঙ্গলবার এসব এজেন্সিকে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। সিনিয়র সহকারী সচিব মুহা. আবু তাহেরের সই করা চিঠিতে এ শোকজ করা হয়। আজ বুধবারের মধ্যে শোকজের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

শোকজ পাওয়া এজেন্সিগুলো হলো– ওয়ার্ল্ড লাইন ট্যুরস অ্যান্ড লাইন, আনসারি ওভারসিস, আল রিসান ট্রাভেল এজেন্সি, মিকাত ট্যুর অ্যান্ড ট্রাভেলস, নর্থ বাংলা ট্যুর অ্যান্ড  ট্রাভেলস এবং হলি দারুন্নাজ্জাত হজ ওভারসিস। এসব এজেন্সির মাধ্যমে মোট ১ হাজার ৮৭৫ জনের হজে যাওয়ার কথা ছিল। গতকাল  আনসারি ওভারসিস মাত্র পাঁচজনের ভিসা সম্পন্ন করেছে। বাকি পাঁচটি এজেন্সি এখনও একজন যাত্রীরও ভিসা আবেদন করতে পারেনি। এ বছর হজ কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী হজ এজেন্সির সংখ্যা ২৫৯টি।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, গত ৯ মে থেকে এ পর্যন্ত ১৭ হাজার ৩১ জন হজযাত্রী সৌদিতে পৌঁছেছেন। বাংলাদেশ থেকে এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ করতে যাবেন ৪ হাজার ৫৬২ জন এবং বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৮০ হাজার ৬৯৫ জন। সৌদি আরবে চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১৬ জুন হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে। বাংলাদেশ থেকে শেষ হজ ফ্লাইট আগামী ১০ জুন। আর প্রথম ফিরতি ফ্লাইট ২০ জুন ও শেষ ফিরতি ফ্লাইট ২২ জুলাই।
 

আরও পড়ুন

×