ঢাকা শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

ই-কমার্সে ছাড়ের হার বেঁধে দেওয়া হবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

ই-কমার্সে ছাড়ের হার বেঁধে দেওয়া হবে: আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

বুধবার ডিআরইউতে 'মিট দ্য রিপোর্টার্স' অনুষ্ঠানে অংশ নেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ছবি: সংগৃহীত

সমকাল প্রতিবেদক

প্রকাশ: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ০৭:৪৩ | আপডেট: ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০:২০

ই-কমার্স থেকে কেনাকাটায় আরও সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, ই-কমার্সে বিভন্ন পণ্যের ছাড়ের হার বেধে দেওয়া হবে। তা হতে হবে পণ্যটির বাজার মূল্যের সঙ্গে মিল রেখে বা কাছাকাছি। অতিরিক্ত ছাড় ক্রেতাদের প্রলুব্ধ করছে।

বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনী মিলনায়তনে 'মিট দ্য রিপোর্টার্স' অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন। ডিআরইউর সভাপতি মুরসালিন নোমানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক মসিউর রহমান খান।

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, 'করোনাকালে ই-কমার্সে অনেক প্রবৃদ্ধি হয়েছে। এটা ধরে রাখতে হবে।' এজন্য তিনি বেশি বেশি এসক্রো সার্ভিস ব্যবহারের পরামর্শ দেন। 

বিট কয়েন নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে পলক বলেন, 'বিশ্ব এখন অনেক এগিয়ে গেছে। বাংলাদেশও পিছিয়ে থাকতে চায় না। বিট কয়েন, ক্রিপ্টো কারেন্সির মতো ডিজিটাল মুদ্রা নিয়ে আলোচনা করতে চাই। একবারে বাদ দিয়ে দিতে চাই না। আলোচনা অন্তত হোক। তাহলে এর ভালো মন্দ-বেরিয়ে আসবে।'

প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'অক্টোবর মাসকে সরকার সাইবার সিকিউরিটি মাস ঘোষণা করতে যাচ্ছে। এই আয়োজন আমাদের সাইবার দুনিয়ায় নিরাপদ থাকতে সহায়তা করবে।' আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, 'দেশের ৫০ শতাংশ ব্যাংক দেশে তৈরি সফটওয়ার ও নিরাপত্তা ব্যবস্থা ব্যবহার করে।'

তিনি জানান, দেশের প্রযুক্তি খাতে নারীর অংশগ্রহণ ১৫ শতাংশের বেশি। ২০৩০ সালের মধ্যে সরকার তা ৩০ শতাংশে উন্নীত করতে চায়।

পরে পলক পেশাদার সাংবাদিকদের সংগঠন ডিআরইউ'র সদস্যদের জন্য উদ্বোধন করেন ডিআরইউ অ্যাপ। এই অ্যাপ ব্যবহারের মাধ্যমে সংগঠনের সদস্যদের বার্ষিক ও কল্যাণ তহবিলের চাঁদা পরিশোধ করা যাবে। অ্যাপে পাওয়া যাবে সংগঠনের সদস্যদের মোবাইল ফোন নম্বর। এছাড়াও পাওয়া যাবে অন্যান্য সেবাও।

অ্যাপ আপগ্রেডের জন্য আইসিটি বিভাগ সব ধরনের সহযোগিতা করবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, 'ডিআরইউর সঙ্গে আমরা একটি চুক্তি করব। সাইবার সিকিউরিটি আওয়্যারনেস বাড়াতে সংগঠনটির সাংবাদিকদের সহযোগিতা আমরা নিতে চাই। তারা বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ও ওয়ার্কশপ করবে। আগামী ৭ দিনের মধ্যেই এই চুক্তিটি করার লক্ষ্য রয়েছে।'

পলক আরও বলেন, 'ডিআরইউতে আমরা একটি শেখ রাসেল ল্যাব স্থাপন করতে চাই। এর ফলে সংগঠনের সদস্য, সদস্য পরিবারের সন্তান, শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন প্রশিক্ষণ নিতে পারবে। সেখানে বিভিন্ন কোর্স, কারিকুলাম থাকবে। সেটি হবে এডুকেশনাল ল্যাব। এছাড়া ডিআরইউ মিডিয়া সেন্টার বা ল্যাবকে আরও উন্নত করতে আমরা সব ধরনের সহযোগিতা করব।' এসময় তিনি তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে ডিআরইউয়ের নেতাদের কাছে ১৫টি ডেস্কটপ কম্পিউটার হস্তান্তর করেন।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি জামাল উদ্দীন, ইলিয়াস হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, সৈয়দ শুক্কুর আলী শুভ, কবির আহমেদ খান প্রমুখ।

আরও পড়ুন

×