শিল্প-সেবা খাতে প্রণোদনার ঋণে ঝুঁকি পরিমাপ লাগবে না

প্রকাশ: ১১ মে ২০২০   

সমকাল প্রতিবেদক

শিল্প ও সেবা খাতের জন্য সরকার ঘোষিত প্রণোদনা তহবিল থেকে ঋণ নেওয়ার প্রক্রিয়া আরও সহজ করলো বাংলাদেশ ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ঋণঝুঁকি রেটিংয়ের শর্ত পূরণ না করে শুধু ব্যাংকের নিজস্ব নীতিমালার আলোকে এ তহবিল থেকে ঋণ দেওয়া যাবে। 

করোনাভাইরাসের কারণে দাপ্তরিক কার্যক্রম সীমিত হয়ে পড়ায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। রোববার এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে ব্যাংকগুলোতে পাঠানো হয়।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, ঋণ দেওয়ার আগে ব্যাংকগুলোকে বাংলাদেশ ব্যাংকের ইন্টারনাল ক্রেডিট রিস্ক রেটিং সিস্টেম (আইসিআরআরএস) নীতিমালা অনুসরণ করতে হয়। এই নীতিমালার আলোকে গ্রাহকের সর্বশেষ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক বিবরণীর তথ্যের ভিত্তিতে রেটিং ন্যূনতম প্রান্তিক হতে হয়। তবে করোনাভাইরাসের কারণে বিদ্যমান পরিস্থিতিতে ওই নীতিমালা অনুসরণ করে গ্রাহকের রেটিং সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি সরবরাহে বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ায় তা সময় সাপেক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ অবস্থায় শিল্প ও সেবা খাতের কার্যক্রম পুনরায় দ্রুত চালু করার লক্ষ্যে শুধু আলোচ্য প্যাকেজের আওতায় ঋণ সুবিধার জন্য রেটিং কার্যক্রম সম্পন্ন না করেও ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক। তবে প্রতিটি ব্যাংকের বিদ্যমান নিজস্ব নীতিমালার আওতায় ঋণঝুঁকি বিশ্লেষণ করে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে গ্রাহক নির্বাচন করতে হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ব্যাংকগুলো অনেক ক্ষেত্রে যেনতেন গ্রাহক নির্বাচনের ফলে খেলাপি ঋণ উদ্বেগজনক হারে বাড়ছিল। এ প্রেক্ষাপটে ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে ঋণঝুঁকি পরিমাপের এ নীতিমালা প্রণয়ন করে বাংলাদেশ ব্যাংক। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) মিলনায়তনে ঋণের ঝুঁকি পরিমাপের নতুন নীতিমালা উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। এই নীতিমালার আলোকে গ্রাহককে- এক্সিলেন্ট, গুড, মার্জিনাল ও আনএকসেপ্টেবল এই চার ক্যাটাগরিতে ভাগ করতে বলা হয়। প্রথম দুই ধরনের গ্রাহককে ঋণ দিতে পারবে ব্যাংক। তৃতীয় ক্যাটাগরির গ্রাহকের ক্ষেত্রে সতর্কতার সঙ্গে ঋণ দিতে হবে। আর চতুর্থ ক্যাটাগরির ব্যক্তির ক্ষেত্রে আগের ঋণ শতভাগ আদায় বা শতভাগ জামানত দিয়ে আচ্ছাদন না করা পর্যন্ত ঋণ দেওয়া যাবে না।