বাজারে অতিরিক্ত তারল্য নিয়ন্ত্রণে চলতি মাস সেপ্টেম্বরেও বাজার থেকে টাকা তুলবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ৭, ১৪ ও ৩০ দিন মেয়াদি বাংলাদেশ ব্যাংক বিলের মাধ্যমে টাকা তোলা হবে। চলতি মাসের প্রথম নিলাম অনুষ্ঠিত হবে আগামী রোববার। ওই দিন ৭ ও ১৪ দিন মেয়াদি বিলের নিলামের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। গত মাসে বাজার থেকে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা তোলা হয়।

দীর্ঘ আড়াই বছর বাংলাদেশ ব্যাংক বিলের নিলাম বন্ধ থাকার পর আগস্টে বিলের মাধ্যমে টাকা তোলা হয়। গত মাসে ৭, ১৪ ও ৩০ দিন মেয়াদি বিলের মাধ্যমে মোট ১৯ হাজার ৬৪৬ কোটি টাকা তোলা হয়। সর্বশেষ ৩১ আগস্ট ৩০দিন মেয়াদি বিলের মাধ্যমে তিন হাজার ৬৬৪ কোটি টাকা নেওয়া হয়। যেখানে সুদহার ছিল এক দশমিক ৪৯ শতাংশ।

আগস্টের আগে সর্বশেষ ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংক বিলের নিলাম হয়। নামমাত্র সুদে ওইদিন একটি ব্যাংক মাত্র শুন্য দশমিক শুন্য ২ শতাংশ সুদে ৭দিনের জন্য ১৫০ কোটি টাকা রেখেছিল। এরপর থেকে নিলাম বন্ধ রাখে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে এখন আবার বাজারে তারল্য ব্যাপক বেড়ে যাওয়ায় নিলাম করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্নিষ্টরা জানান, আশানুরুপ ঋণ চাহিদা না থাকায় গত জুন শেষে সিআরআর সংরক্ষণের পর ব্যাংকগুলোর অলস পড়ে আছে ৬২ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। একই সময়ে উদ্বৃত্ত অর্থের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৩১ হাজার কোটি টাকা। এ অর্থ যেন অনুৎপাদনশীল খাতে গিয়ে মূল্যস্ফীতির ওপর চাপ তৈরি করতে না পারে সে জন্য টাকা তোলা হচ্ছে। এ অর্থ নিয়ে কোনো কাজে লাগানো হচ্ছে তেমন নয়। বরং মুদ্রানীতির লক্ষ্য বাস্তবায়নের জন্য এটা করা হচ্ছে।

বুধবার সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীকে চিঠি দিয়ে চলতি মাসের নিলামের বিষয়টি জানানো হয়। চিঠিতে বলা হয়েছে, বাজারে অতিরিক্ত তারল্য নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে মুদ্রাবাজারে স্থিতিশীলতা বাজায় রাখতে চলতি সেপ্টেম্বর মাসেও নিলাম চলমান রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। চিঠির সঙ্গে নিলামের ক্যালেন্ডার সংযুক্ত করা হয়েছে। ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, আগামী ৫, ৯, ও ২১ সেপ্টেম্বর ৭ ও ১৪দিন মেয়াদি বিলের ৬টি নিলাম অনুষ্ঠিত হবে। আর ৭, ১৯ ও ২৩ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ৩০দিন মেয়াদি বিলের নিলাম। তবে যে কোনো সময় নিলামের এ তারিখ পরিবর্তন হতে পারে বলে চিঠিতে বলা হয়।