চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ৩৯নং ওয়ার্ডের সিপিজেড এলাকার মো. শাহীন সপরিবারে কুয়াকাটায় বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে শনিবার একটি বাসে করে বাড়ি ফিরছিলেন তারা।

এদিন বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে আমতলী-পটুয়াখালী মহাসড়কের আমড়াগাছিয়া এলাকায় (রহমানিয়া পেট্রোলিয়া ফিলিং স্টেশনের উত্তর পাশে) তাদের বহন করা বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা অন্য একটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে মো. শাহীনের স্ত্রী আয়শা বেগম (৩২) ও তার আট মাস বয়সী ছেলে আয়ান ঘটনাস্থলেই মারা যান। মেয়ে রেবেকাসহ তিনিও গুরুতর আহত হয়েছেন। বাবা-মেয়েসহ আহত ২০ জনকে উদ্ধার করে আমতলী ও পটুয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পেট্রোল পাম্পের কর্মচারী রহমান জানান, বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে বিকট শব্দ শুনে তাকিয়ে দেখেন দুটি বাসের মুখোমুখি সংষর্ষ হয়েছে। এতে কপবাজার থেকে ছেড়ে আসা সেবা পরিবহনের বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে সড়কের পূর্ব পাশের ডোবায় পড়ে যায় এবং গোল্ডেন লাইন পরিবহনের বাসটিও একই অবস্থায় সড়কের পশ্চিম পাশে ছিটকে পড়ে। সংঘর্ষের পরপরই বাসে থাকা যাত্রীদের চিৎকারে বাতাস ভারি হয়ে ওঠে। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে স্থানীয়রা এবং ফায়ার সার্ভিসের কর্মী ও পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে আহত এবং নিহতদের উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে নিয়ে যান।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহ আলম হাওলাদার জানান, বাস দুটিকে আটক করা হয়েছে। গোল্ডেন লাইনের চালক আহত হয়ে পটুয়াখালী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অন্য বাসের চালক এবং হেলপাররা পালিয়ে গেছে।