বরগুনায় অনিক হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশ: ০৭ আগস্ট ২০১৯      

বরগুনা প্রতিনিধি

বরগুনায় আলোচিত অনিক হত্যা মামলায় একজনকে মৃত্যুদণ্ড ও দু'জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। তিন আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান বুধবার এ রায় দেন।

মামলার প্রধান আসামি সালাউদ্দিন গাজীকে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং রুবেল সওদাগর ও নাজমুলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় হৃদয় আহসান, বাদল কৃষ্ণ রায় ও সোহেল খানকে বেকসুর খালাস দিয়েছে আদালত। সালাউদ্দিন পলাতক রয়েছে। সে বরগুনা সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের কাঠালতলী গ্রামের আবদুস সত্তার গাজীর ছেলে। রুবেল সওদাগর বরগুনা পৌরসভার থানাপাড়া সড়কের জামাল সওদাগরের ছেলে এবং নাজমুল সদর উপজেলার বড় গৌরীচন্না গ্রামের আবদুল আজিজের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর বরগুনা পৌরসভার শহীদ স্মৃতি সড়কের সুবল চন্দ্র রায়ের ছেলে অনিককে (১৭) কোমল পানীয়র সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করা হয়। মরদেহ জেলা সাব-রেজিস্টার অফিসের পুরনো ভবনের পাশে সেপটিক ট্যাঙ্কের ভেতরে ফেলে রাখা হয়।

অনিককে হত্যার পরের দিন সকালে তার বাবা সুবল চন্দ্র রায়কে ফোন করে তিন লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। হত্যার তিন দিন পরে সুবল চন্দ্র রায় বরগুনা থানায় হত্যা মামলা করেন। পরে একাধিক আসামি গ্রেফতার হলে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী হত্যার ১৮ দিন পরে ৫ অক্টোবর রাতে সেপটিক ট্যাঙ্কের ভেতর থেকে অনিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মামলার দীর্ঘ শুনানি ও ৩৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে জেলা ও দায়রা জজ রায় দেন।

অনিকের বাবা সুবল রায় বলেন, দীর্ঘ সাত বছর ছেলে হত্যার বিচারের দাবিতে আদালতে ঘুরেছি। দ্রুত যেন এ রায় কার্যকর হয়।

বরগুনার পাবলিক প্রসিকিউটর ভুবন চন্দ্র হাওলাদার জানান, মামলার নথি যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে খালাস পাওয়া আসামিদের ব্যাপারে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।

আসামিপক্ষের আইনজীবী আবদুর রহমান নান্টু জানান, দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ব্যাপারে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে।