ছিনতাই করতে ঢাকা থেকে মনপুরায় গিয়ে আটক ২ কিশোর

প্রকাশ: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০   

ভোলা প্রতিনিধি

পুলিশের হাতে আটকরা -সমকাল

পুলিশের হাতে আটকরা -সমকাল

ভোলার মনপুরায় মধ্যরাতে একমুদি ব্যবসায়ীর পথরোধ করে ছিনতাই ও হত্যার চেষ্টাকালে ঢাকা থেকে আসা ২ কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় পালিয়ে যাওয়া অপর ২ কিশোর আটকে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে রামনেওয়াজ- হাজিরহাট সড়কের হরিবাড়ি এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, ব্যবসয়ীদের কাছ থেকে টাকা ছিনতাই করতে ঢাকা থেকে কিশোর গ্যাংয়ের চার সদস্য মনপুরায় আসে।  বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২ টার সময় মনপুরার তুলাতলী বাজার থেকে মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফিরছিলেন মুদি ব্যবসায়ী মো. নুরনবী অরুন। রামনেওয়াজ-হাজিরহাট সড়কের হরিবাড়ি এলাকায় পৌঁছালে রাস্তার দুইপাশে গাছের সঙ্গে দড়ি বেঁধে তার পথরোধ করার চেষ্টা করে ঢাকা থেকে আসা কিশোর গ্যাংয়ের ৪ সদস্য শুভ, হৃদয়, এছাহাক ও ফরহাদ। এসময় ব্যবসায়ী অরুন ডাক চিৎকার করলে আশপাশের লোকজনকে ছুটে আসতে দেখে তারা পালানোর চেষ্টা করে। এসময় চক্রের সদস্য হৃদয় রাস্তার পাশের পুকুরে পড়ে গেলে স্থানীয়রা তাকে আটক করে পুলিশে দেয়। পরে অভিযান চালিয়ে পুলিশ এছাহাক নামে আরেক কিশোরকে আটক করে।

আটকরা জানিয়েছে, মনপুরার রামনেওয়াজের শুভ নামে তাদের এক বন্ধু ছিনতাই করার জন্য তাদের মনপুরায় নিয়ে এসেছে। শুভর নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবসায়ী অরুনের পথরোধ করা হয়।

মুদি ব্যবসায়ী নুরনবী অরুন জানান, প্রতিদিনের মতো বাজার থেকে মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফেরার পথে হরিবাড়ির সামনে রাস্তার দুই পাশে দড়ি বেঁধে গতিরোধ করে ছিনাতাইসহ হত্যার চেষ্টা করে কিশোররা। এই সময় চিৎকার দিলে পাশে থাকা স্থানীয়রা ছুটে আসলে ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যায়। পরে পালিয়ে যাওয়ার সময় এক সদস্য পুকুরে পড়ে গেলে তাকে ধরে পুলিশে কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আটক হৃদয় জানায়, স্থানীয় শুভর সহযোগিতায় ঢাকা থেকে চারদিন আগে তারা তিনজন মনপুরায় আসে। গত তিনদিন ধরে ওই ব্যবসায়ীর গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করে তারা। পরে বৃহস্পতিবার রাতে পরিকল্পনা অনুযায়ী ৪ জন টাকার ব্যাগ ছিনতাইয়ের জন্য পথরোধ করলে এমন ঘটনা ঘটে।

মনপুরা থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন জানিয়েছেন, ছিনতাইয়ের উদ্দেশে তারা ব্যবসায়ী অরুনের পথরোধ করেছিল। দুইজনকে পুলিশ আটক করেছে। শুভ ও ফরহাদ নামে বাকি ২ জনকে আটকে অভিযান চলছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রীয়াধীন।

তিনি জানান, আটক হৃদয় বরিশালের কৃষ্ণকাঠি গ্রামের বাসিন্দা বাদল মৃধার ছেলে ও এছাহাকের বাড়ি নরসিংদী। শুভর বাড়ি মনপুরায় হলেও ফরহাদের ঠিকানা এখনও জানা যায়নি। এ চার জন্য একসঙ্গে ঢাকার হেমায়েতপুর বসবাস করতো।