সাবেক উপাচার্যের অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জারিকৃত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করেছেন নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (নোবিপ্রবি) শিক্ষকরা। বৃহস্পতিবার থেকে এ কর্মবিরতি শুরু হয়। শুক্রবার বিবৃতিতে এ তথ্য জানান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড. নেওয়াজ মোহাম্মদ বাহাদুর ও সাধারণ সম্পাদক মজনুর রহমান।

বিবৃতিতে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬০ শিক্ষক অস্থায়ী পদে নিয়োগপ্রাপ্ত। অনেক শিক্ষকের পরবর্তী পদে পদোন্নতির সময়ও প্রায় এক বছর পার হয়েছে। তাদের পরে স্থায়ী পদে নিযুক্ত শিক্ষকরাও পদোন্নতি পেয়ে যাওয়ায় শিক্ষকদের মধ্যে বৈষম্য দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া অনেক বিভাগেই পর্যাপ্ত শিক্ষক নেই, মাত্র দু'জন শিক্ষক দিয়ে দুটি শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম চলছে। এতে মানসম্মত শিক্ষা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, শিক্ষক সমিতি গত ২০ সেপ্টেম্বর মানববন্ধন করে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই সমস্যার সমাধানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সময়সীমা বেঁধে দেয়। সে সময় উপাচার্য শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে বারবার আশ্বাস দিলেও নির্ধারিত সময়ে কোনো ফলাফল আসেনি।

নোবিপ্রবির উপাচার্য প্রফেসর দিদারুল আলম জানান, শিক্ষকদের দাবি যৌক্তিক। তাদের দাবি পূরণের জন্য চেষ্টা চালাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিগগিরই এ সংকট নিরসনের আশ্বাস দিয়েছেন শিক্ষা সচিব।

সাবেক উপাচার্যের অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে ২০১৯ সালের ২৮ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ে সব পর্যায়ের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সেই নিষেধাজ্ঞা এখনও বহাল রয়েছে।