ঢাকা রবিবার, ১৯ মে ২০২৪

গানে গানে একুশ স্মরণ

গানে গানে একুশ স্মরণ

রাজধানীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শনিবার বাংলাদেশ সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত 'অমর একুশ স্মরণ' অনুষ্ঠানে শিল্পীদের সংগীত পরিবেশনা - সমকাল

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

প্রকাশ: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ১৮:০০

কৃষক-মজুর, প্রেমিক-প্রেমিকার গুনগুনানিতে একুশের গান। এসব গানে আছে ভাষার বন্দনা, ভাষাশহীদদের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসার প্রকাশ। তাই একুশের গানে আমাদের হৃদয়ে খেলে অন্যরকম আবেগ। এ আবেগ এখন শুধু বাঙালিদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, এটি ছড়িয়ে গেছে দেশে দেশে, নানা ভাষাভাষীর মধ্যে। মূলত একুশ মানে মাতৃভাষার প্রতি ভালোবাসা।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে গতকাল শনিবার বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে 'অমর একুশ স্মরণ' অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদ। এ সময় গানে-নৃত্যে শহীদদের স্মরণ করেন শিল্পীরা।

শুরু থেকে অনুষ্ঠানস্থলে শ্রোতারা জড়ো হতে শুরু করেন। সন্ধ্যায় লোকারণ্য হয়ে ওঠে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ। ঢাকঢোলের আওয়াজ আর বাঁশির সুরের মূর্ছনায় ভাষাশহীদদের স্মরণ করে সর্বস্তরের মানুষ।

অনুষ্ঠানে সপ্তরেখা শিল্পীগোষ্ঠী পরিবেশন করে 'একুশ তুমি বছর ঘুরে' ও 'মুক্তি সেনার রক্তে ভেজা' গান; 'মুক্তির মন্দিরও সোপান তলে' ও 'মাগো ভাবনা কেন' গান পরিবেশন করে নির্ঝরিণী একাডেমি। 'একুশ মানে হিংস্র চোখের' ও 'আমার প্রতিবাদের ভাষা' গান গেয়ে শোনায় শিল্পীগোষ্ঠী মহীরুহ। উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী পরিবেশন করে 'ফাগুন চৈত্রের ফুলগুলিরে' ও 'সোনা সোনা সোনা লোকে বলে সোনা'। নিবেদনের শিল্পীরা পরিবেশন করেন 'মিলিত প্রাণের কলরবে' ও 'সেদিন শহরে বারুদের মতো' গান।

গীত শতদলের কণ্ঠে গীত হয় বিখ্যাত গান 'মোদের গরব মোদের আশা' ও 'সালাম সালাম হাজার সালাম', 'অপমানে তুমি জ্বলে উঠেছিলে' ও 'আজকের গান একুশের গান' পরিবেশন করে অভ্যুদয়। সুরনন্দন পরিবেশন করে 'নমঃ নমঃ বাংলাদেশ মম' এবং 'ও ভাই খাঁটি সোনার চেয়ে খাঁটি'; 'ধন ধান্যে পুষ্পভরা' এবং 'ও আমার দেশের মাটি' গানের সুর তোলে সুরের ধারা; 'রক্ত শিমুল তপ্ত পলাশ' ও 'ঘুমের দেশে ঘুম ভাঙাতে' গান গেয়ে শোনায় সংগীত ভবন।

একক সংগীত পরিবেশন করেন সপ্তরেখার উদয় শিল্পী প্রসাদ, নির্ঝরণী একাডেমির তসলিমা বেগম, মহীরুহ শিল্পীগোষ্ঠীর প্রদীপ কুমার, নিবেদন গোষ্ঠীর শিল্পী লিনা দাস, উদীচীর সুরাইয়া পারভীন, গীত শতদলের গায়ক শামীমা রহমান মুন্নি, অভ্যুদয় গোষ্ঠীর আরিফুর রহমান, সুরনন্দন শিল্পীগোষ্ঠীর আশিষ কুমার শীল, সংগীত ভবনের সর্বানী চক্রবর্তী ও অলি ভৌমিক রায়। এ ছাড়া আরও গান পরিবেশন করে শিল্পী চ্যাটার্জি, সুকুমার বিশ্বাস, রজত দত্ত।

আরও পড়ুন

×