পহেলা বৈশাখে রমনা পার্কে ছায়ানটের বর্ষবরণ অনুষ্ঠান ছাড়া আর কোনো অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হবে না। রমনা পার্ককে রক্ষার জন্য এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।
 
গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় গত মঙ্গলবার এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।
 
এতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন সরকারি, বেসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং পেশাজীবী, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের অনুষ্ঠানের ফলে রমনা পার্কের সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। অনেক দুর্লভ বৃক্ষ ও তরুলতা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে এবং পার্কের ঐতিহ্য হারাচ্ছে। এসব অনুষ্ঠানের কারণে পার্কের ভেতরে অস্থায়ী দোকান ও ভ্রাম্যমাণ হকাদের দৌরাত্ম্য বাড়ে। এতে পার্কের জীববৈচিত্র্যও হুমকির মুখে পড়ে।
 
প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পার্কের সৌন্দর্য বৃদ্ধি, ঐতিহ্য সুরক্ষা ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের জন্য পহেলা বৈশাখে ছায়ানটের বর্ষবরণ ছাড়া অন্য কোনো সংগঠনকে পহেলা বৈশাখ ছাড়াও অন্য কোনো সময়ে অনুষ্ঠান করার অনুমতি দেওয়া হবে না।
 
উল্লেখ্য, গত ২৩ ফেব্র“য়ারি রমনা পার্কের সৌন্দর্য বৃদ্ধি, ঐতিহ্য সুরক্ষা ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের দাবি জানিয়ে একটি বেসরকারি সংগঠন আয়োজিত সেমিনারে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ রমনা পার্কে অনুষ্ঠানের অনুমতি না দেওয়ার জন্য গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফের কাছে দাবি জানান। ওই অনুষ্ঠানেই মন্ত্রী রমনা পার্কে আর কোনো অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হবে না বলে ঘোষণা দেন। এরপর মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়।