বিজিএমইএ ভবন ভাঙার প্রক্রিয়া শুরু রাজউকের

প্রকাশ: ১৬ এপ্রিল ২০১৯     আপডেট: ১৬ এপ্রিল ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

উচ্চ আদালতের রায়ে অবৈধ ঘোষিত রাজধানীর হাতিরঝিলের ১৬ তলাবিশিষ্ট বিজিএমইএ ভবন ভাঙার প্রক্রিয়া শুরু করেছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। মঙ্গলবার সকালে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্যদের নিয়ে ওই ভবনের সামনে অবস্থান নেন রাজউক কর্মকর্তারা। তাদের সঙ্গে ভবন ভাঙার আধুনিক সব যন্ত্রপাতি রয়েছে।

রাজউকের পরিচালক (প্রশাসন) খন্দকার অলিউর রহমান বলেন, ভবনটির বিভিন্ন তলায় এখনও বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের অফিস রয়েছে। ভবন ভাঙার কাজেরই একটা অংশ হিসেবে আমরা এসব প্রতিষ্ঠানের মালামাল দ্রুত সরিয়ে নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে। এরপর আমরা ভবন ভাঙার কাজ শুরু করব। এর বিদ্যুৎ ও গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য লোক ডাকা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে ভবনটি ভাঙা হবে। সেটা ডিনামাইট ব্যবহার বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে হতে পারে। তবে পুরো ভবনটি কখন কীভাবে ভাঙা হবে- এ ব্যাপারে নিশ্চিত করেননি অলিউর রহমান। 

২০১১ সালের ৩ এপ্রিল হাইকোর্ট এক রায়ে বিজিএমইএর বর্তমান ভবনটিকে ‘হাতিরঝিল প্রকল্পে ক্যানসারের মতো’ বলে উল্লেখ করা হয়। একই সঙ্গে রায় প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেন আদালত। এর বিরুদ্ধে বিজিএমইএ লিভ টু আপিল করলে ২০১৬ সালের ২ জুন আপিল বিভাগ সেটি খারিজ করে দেন। এ রায়ে বলা হয়, ভবনটি নিজ খরচে অবিলম্বে ভাঙতে আবেদনকারীকে (বিজিএমইএ) নির্দেশ দেওয়া যাচ্ছে। এতে ব্যর্থ হলে রায়ের কপি হাতে পাওয়ার ৯০ দিনের মধ্যে রাজউককে ভবনটি ভেঙে ফেলতে নির্দেশ দেওয়া হলো। 

পরে ভবন ছাড়তে উচ্চ আদালতের কাছে সময় চায় বিজিএমইএ। প্রথমে ছয় মাস ও পরে সাত মাস সময়ও পায় তারা। সর্বশেষ গত বছর নতুন করে এক বছর সময় পায় সংগঠনটি। এ বিষয়ে ভবিষ্যতে আর সময় চাওয়া হবে না বলেও ওই সময় মুচলেকা দেওয়া হয়।


বিষয় : রাজউক বিজিএমইএ ভবন