পূর্বাচলে প্লট বরাদ্দে অনিয়ম

হাইকোর্টে রাজউক বোর্ড সভার সব নথি তলব

প্রকাশ: ২৩ মে ২০১৯       প্রিন্ট সংস্করণ     

সমকাল প্রতিবেদক

পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পে রাজউকের বোর্ড সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বন, উন্মুক্ত স্থান, খেলার মাঠ, পার্ক, জলাশয়সহ অন্যান্য প্রস্তাবনা-সংক্রান্ত চতুর্থ ও পঞ্চম সংশোধিত নকশার (লেআউট প্ল্যান) অনুলিপি আগামী ৩০ জুন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। তলব করা হয়েছে ২০১৪ সালের পর থেকে বর্তমান পর্যন্ত এ সংক্রান্ত রাজউক বোর্ড সভার সব নথি। রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি মঈনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি আশরাফুল কামাল সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল বুধবার এ আদেশ দেন। একই সঙ্গে আগামী ৪ জুলাই পরবর্তী শুনানির জন্য দিন ধার্য রাখেন আদালত।

সাতটি পরিবেশবাদী সংগঠনের জনস্বার্থে করা রিট আবেদনের পর ২০১৪ সালের ১৩ মার্চ হাইকোর্ট এক রায়ে পূর্বাচল প্রকল্পের জন্য রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) দাখিলকৃত চতুর্থ সংশোধনী প্ল্যান চূড়ান্তভাবে অনুমোদন দেন। আবেদনকারী সংস্থাগুলো হচ্ছে- আইন ও সালিশ কেন্দ্র, এএলআরডি, বেলা, বাপা, আইএবি, পবা এবং নিজেরা করি। সংগঠনগুলোর পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন আইনজীবী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান ও সাঈদ আহমেদ কবীর। রাজউকের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার তানজিব-উল-আলম।

২০১৮ সালের নভেম্বর মাসে হাইকোর্টের অনুমোদিত চতুর্থ সংশোধিত প্ল্যানের ব্যত্যয় ঘটিয়ে নতুন প্লট সৃষ্টির জন্য পঞ্চম সংশোধনী প্ল্যান অনুমোদনের জন্য আদালতে আবেদন করে রাজউক। রাজউকের এ প্ল্যান বিশ্নেষণ করে দেখা যায়, তিনটি পরিবর্তন প্রস্তাবনায় (১০০ তলাবিশিষ্ট ভবন, রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো এবং রাজউকের কেন্দ্রীয় স্ট্যাকইয়ার্ড) নতুন স্থাপনার জন্য পূর্বাচলের চতুর্থ সংশোধিত প্ল্যানের ২১ রকম ভূমি ব্যবস্থাপনার প্রায় ২০টিতেই পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করা হয়েছে। উদ্বেগজনকভাবে, চতুর্থ সংশোধিত প্ল্যানে চিহ্নিত সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে খেলার মাঠ (প্রায় ১৪০ একর) সরিয়ে নিয়ে তা অন্যত্র বরাদ্দ দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল রাজউকের প্রস্তাবিত পঞ্চম সংশোধনী প্ল্যানে। একই বছরের ১৭ ডিসেম্বর হাইকোর্ট রাজউকের এমন প্রস্তাবনা সমন্বিত পঞ্চম সংশোধনী প্ল্যান কার্যত বাতিল করে দেন এবং তিনটি প্রস্তাবিত পরিবর্তনের মধ্যে কেবল ১০০ তলা ভবনের অনুমোদন দেওয়া যেতে পারে মর্মে আদেশ দেন। গত ৩ মার্চ সমকালে '৮৪ প্লট গোপনে বরাদ্দ' শীর্ষক খবর প্রকাশিত হয়। সংবাদ প্রকাশের এরপর পঞ্চম সংশোধনী প্ল্যানের সপক্ষে আদালতে রাজউকের প্রস্তাবনার অসামঞ্জস্যের পরিপ্রেক্ষিতে পরিবেশবাদী সংগঠন বেলাসহ রিট আবেদনকারী সংগঠনগুলো আদালতে নতুন আবেদন করে। এর ধারাবাহিকতায় গতকাল হাইকোর্ট এ আদেশ দেন।