ব্যারিস্টার তুরিনের বিরুদ্ধে মা-ভাইয়ের সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশ: ২০ জুন ২০১৯     আপডেট: ২০ জুন ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

সংবাদ সম্মেলনে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের মা ও ভাই -সংগৃহীত

নিজ বাড়িতে ফিরতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ চাইলেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের মা সামসুন নাহার তসলিম। 

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে ল রিপোর্টার্স ফোরাম (এলআরএফ) কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়টি তুলে ধরেন তিনি। এ সময় তুরিন আফরোজের ছোট ভাই শাহনেওয়াজ আহমেদ শিশির উপস্থিত ছিলেন।

সামসুন নাহার তসলিম বলেন, স্বামী তসলিম উদ্দিন আহমেদ মারা যাওয়ার ১৮ দিন পর (২ মার্চ ২০১৭) তুরিন আমাকে বাসা থেকে এক কাপড়ে বের করে দেয়। আমার দোষ, তার (তুরিন আফরোজ) কিছু অনৈতিক আচরণের প্রতিবাদ করা। 

এদিকে মা ও ছোট ভাইয়ের সংবাদ সম্মেলন প্রসঙ্গে ব্যারিস্টার তুরিন সমকালকে বলেন, বাড়ি নিয়ে আদালতে মামলা রয়েছে। বিচারাধীন বিষয়ে কোনো মন্তব্য করা ঠিক হবে না।

সামসুন নাহার তসলিম অভিযোগ করেন, অপরিচিত লোকদের রাত-বিরাতে ঘরে প্রবেশ নিয়ে দারোয়ান ও ভাড়াটিয়ারা অভিযোগ করলে তাদের সঙ্গে তুরিনের প্রায়ই ঝগড়া লাগত। এসব বিষয়ে নিষেধ করলে র‌্যাব ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নামে তুরিন ভয় দেখাত এবং বলত- ওরা সবাই তার বন্ধু। কিছু বললেই ৫৭ ধারায় গ্রেফতার করার ভয় দেখাত। গানম্যান দিয়ে ভয় দেখাত। গ্রামের বাড়ি নীলফামারী যেতে পারি না। সে সেখানে দায়িত্ব নিয়ে জমিজমা ও বাড়ি নিজের নামে কুক্ষিগত করেছে।

সামসুন নাহার আরও বলেন, ওষুধ কেনার পয়সা বাড়ি ভাড়া থেকে পেতাম; সেটাও সে (তুরিন) কেড়ে নিয়েছে। আমি আমার সংসারে ফিরে যেতে চাই। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

সংবাদ সম্মেলনে তুরিন আফরোজের ছোট ভাই শাহনেওয়াজ শিশির বলেন, ক্ষমতার দাপটে ব্যারিস্টার তুরিন আমাকে এবং মাকে ভয়-ভীতি প্রদর্শন এবং হয়রানি করে আসছে। তার কারণ হচ্ছে, আমাদের ব্যক্তিগত সম্পদ কুক্ষিগত করা।

তিনি আরও বলেন, ব্যারিস্টার তুরিন শুধু ঢাকাতেই নয়, নীলফামারীতে চাচাতো ভাই ও বোনদের জমিজমা জিম্মি করে রেখেছে। এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাই।

নিজ বাড়িতে ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগে ব্যারিস্টার তুরিনের বিরুদ্ধে গত ১৩ জুন রাজধানীর উত্তরা-পশ্চিম থানায় জিডি করেন তার ছোট ভাই শিশির। এর আগে উত্তরায় ভাইয়ের নামে মায়ের দেওয়া ওই বহুতল বাড়িটি গত বছর অবৈধ দখলে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে ব্যারিস্টার তুরিনের বিরুদ্ধে। দখল হওয়া বাড়ি উদ্ধারের জন্য ঢাকার নিম্ন আদালতে মামলা করেন শিশির।