রাজধানী

বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ভাংচুরের ঘটনায় অর্ধশত চিকিৎসকের নামে মামলা

প্রকাশ: ১২ জুন ২০১৯      

সমকাল প্রতিবেদক

ফাইল ছবি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্যের কার্যালয়ে ভাংচুরের ঘটনায় প্রায় অর্ধশত চিকিৎসকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে কর্তৃপক্ষ।

বিএসএমএমইউর প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর শাহবাগ থানায় এ মামলা করেন।

চাকরিপ্রার্থী চিকিৎসকরা কয়েকদিন ধরে মৌখিক পরীক্ষা বাতিল করে ফের পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে আন্দোলন করে আসছিলেন।

সর্বশেষ মঙ্গলবার দুপুরে তারা উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে দরজা-জানালা ও কার্যালয়ের ভেতরে ভাংচুর চালান। পরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ মৌখিক পরীক্ষা সাময়িক স্থগিত ঘোষণা করে।

এ ভাংচুরের ঘটনায় ডা. বিজয় কুমার পাল, ডা. আহসান হাবীব হেলাল, ডা. আরিফুল ইসলাম জোয়ার্দার টিপু, ডা. বশির আহমেদ, ডা. মো. ফারুক, ডা. তৌহিদুজ্জামান, ডা. মোহাম্মদ জাকির, ডা. এনায়েত উল্লাহ তুষার, ডা. প্রাণ, ডা. শুভাষ কান্তি দে, ডা. দীপঙ্কর, ডা. রাফিউল বারী, ডা. বিদ্যুৎ চন্দ্র দেবনাথ, ডা. শরীফসহ অর্ধশত চিকিৎসককে মামলায় আসামি করা হয়েছে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে চিকিৎসক নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে। এ প্রক্রিয়ায় যেসব চিকিৎসক অকৃতকার্য হয়েছেন, তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিস্থিতি অশান্ত করতে গত মঙ্গলবার দুপুরে প্রশাসন ভবনের দোতলায় প্রবেশ করেন। তাদের সঙ্গে পুলিশ ও আনসারদের সংঘর্ষ হয়। একপর্যায়ে তারা সেখানে জানালা ও দরজার কাচ ভাংচুর করেন। পরে উপাচার্যের কক্ষে জোরপূর্বক প্রবেশের চেষ্টা চালান। এ সময় তারা সেখানকার মূল্যবান জিনিস ভাংচুর করেন।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান, চাকরিতে নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে যারা পরীক্ষা বাতিল চেয়েছেন, তারাই ভাংচুর চালিয়েছেন বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে। প্রায় অর্ধশত ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হলেও অন্যদের অজ্ঞাত বলে মামলায় বলা হয়েছে। ভিডিও ফুটেজ দেখে ও তদন্তের মাধ্যমে ভাংচুরে জড়িতের চিহ্নিত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

চিকিৎসক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষায় অনিয়মের অভিযোগ অস্বীকার করে বিএসএমএমইউর উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ূয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্পূর্ণ মেধার ভিত্তিতে চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। নিয়োগ প্রক্রিয়া নিখুঁত করতে বলেছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী মেধার ক্ষেত্রে কোনো আপস করব না। যারা প্রকৃত মেধাবী তারাই চিকিৎসক হবেন। মেধা নিয়ে আপস করলে এটি বিশ্ববিদ্যালয় থাকবে না, তদবিরকারী প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে।

বিষয় : বিএসএমএমইউ