অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির ৯০০ কর্মকর্তা-কর্মচারীকে বদলি করা হয়েছে। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে তিতাস কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি তাদের বদলি করেছে বলে জানা গেছে।

দুদকের সাম্প্রতিক অভিযানের পর এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটির এনফোর্সমেন্ট ইউনিটের সদস্যদের জানিয়েছে তিতাস কর্তৃপক্ষ।

সোমবার দুদকের সহকারী পরিচালক আফরোজা হক খান ও উপসহকারী পরিচালক মোহাম্মদ শিহাব সালামের সমন্বয়ে এনফোর্সমেন্ট টিমের সদস্যরা তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় তারা তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষকে জানান, বদলি হওয়া বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী কর্মকর্তা-কর্মচারী ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশের মাধ্যমে আগের কর্মস্থলে ফিরে আসার চেষ্টা করছেন। এ ধরনের তথ্য রয়েছে এসফোর্সমেন্ট টিমের কাছে। বদলি বাণিজ্য রোধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানান টিমের সদস্যরা।

জানা গেছে, দুদকের এনফোর্সমেন্ট টিমের সদস্যরা সম্প্রতি অভিযান চালিয়ে রাজধানীর বনানীর গোল্ডেন টিউলিপ হোটেলে বকেয়া বিদ্যুৎ বিলের তথ্য জানিয়েছিলেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ ওই হোটেলকে ১১ লাখ টাকা জরিমানা করে এবং গ্যাস সংযোগ স্থায়ীভাবে বিচ্ছিন্ন করে।

এদিকে, দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় দিনাজপুর ও সিলেট থেকে গতকাল দুটি অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ ছাড়া এক ইউপি সচিবের বিরুদ্ধে জন্মনিবন্ধন সনদ বিক্রি করে অর্থ নেওয়ার অভিযোগে এদিন দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-২ থেকে অভিযান চালানো হয়। অভিযানকালে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।