‘হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি: শেখ মুজিবুর রহমান’-এ প্রতিপাদ্যে মুক্ত আসরের উদ্যোগে বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটির আয়োজনে শুরু হয়েছে ১৫ দিনব্যাপি ওয়েবিনার।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার থেকে ১৫ দিনব্যাপী প্রথমবারের মতো অনলাইনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক সম্মেলন (আইবিসিএমআর-২০২০) আয়োজন করা হয়েছে। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান, মুক্ত আসরের প্রধান উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) মাসুদুর রহমান বীর প্রতীক, বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএসএ মনসুর আহমেদ, বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটির সভাপতি সেলিনা হোসেন, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইতিহাসবিদ অধ্যাপক একেএম শাহনাওয়াজ, অধ্যাপক এমরান জাহান, ড. আবেদা সুলতানা, রাশেদা নাসরীন, নুরুন আখতার ও জাতীয় মানসিক হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক হেলাল উদ্দিন আহমেদ।

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলেন, বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটির আয়োজনে প্রথমবারের মতো জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপর আর্ন্তজাতিক সম্মেলন যা ওয়েবিনারের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে এমন আয়োজনের জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানাই। 

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, এই দিনটি আমি ব্যক্তিভাবে মনে করি, শুধু শোকের দিন নয়, বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে পাওয়া শক্তির দিনও। আমরা শোক এবং শক্তিকে এক করে দেখবে। শক্তির যে জায়গায় যখন আমরা বঙ্গবন্ধু রাজনীতি, সামাজিক দর্শন আমাদেন জীবনে ধারণ করব তখনেই সেটা শক্তিতে রুপান্তরিত করবো।

১৫ দিনের এই সম্মেলনে বাংলাদেশসহ ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, পেরু, যুক্তরাজ্য, ‍যুক্তরাষ্ট্র থেকে ২১জন খ্যাতিমান শিক্ষক, গবেষক, লেখক, নির্মাতা, চিত্রশিল্পী, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কমী অংশ নেবেন।

আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপর গুরুত্বপূর্ণ ২১টি বিষয়ে প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হবে। এই সম্মেলনে প্রবন্ধ উপস্থাপনা করবেন গবেষক, লেখক ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি মফিদুল হক, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের দর্শনের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান শরীফ উদ্দিন আহমেদ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের  ইতিহাস-সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ও চেয়ারম্যান মো.আতিয়ার রহমান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহযোগী অধ্যাপক জেবউননেছা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ স্টাডিজ অধ্যাপক স্বরোচিষ সরকার, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ব বিভাগের এ এইচ এম জেহাদুল করিম, ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ সেলিম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক এমরান জাহান, বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও লেখক সেলিম জাহান, ভারতের রবীন্দ্র ভারতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক আশীষ কুমার দাস, পাকিস্তানের মানবাধিকার কর্মী আরিফ আজকিয়া, বেলুস্তানের জাতীয় নেতা মেহেরান মারি, কানাডার লেখক ও গবেষক তাহের আসলাম গোরা, পেরুর কবি, লেখক ও নির্মাতা ওয়াল্টার ভিয়ানোয়েভা আছায়া, ভারতের লেখক শশাঙ্ক শেখর ব্যানার্জি, ইতিহাসবিদ মমতাজ উদ্দীন পাটোয়ারী, নেপালের শিল্পী মুকেশ শ্রেষ্ঠা ও যুক্তরাষ্ট্রের সাংবাদিক সৈয়দ মাহমুদুল্লাহ।