রাজস্ব আদায় বাড়াতে চিরুনি অভিযান শুরু করেছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। মঙ্গলবার অভিযানের প্রথম দিনে ছয় প্রতিষ্ঠানকে পাঁচ লাখ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এসব প্রতিষ্ঠান ডিএনসিসিকে হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধ না করে এবং ট্রেড লাইসেন্স ছাড়াই ব্যবসা করে আসছিল।

মঙ্গলবার  ডিএনসিসি মেয়র আতিকুল ইসলাম মোহাম্মদপুরের ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠান থেকে এ অভিযানের উদ্বোধন করেন। এ সময় মেয়র বলেন, এ শহরে ব্যবসা করতে হলে নির্ধারিত হারে ট্যাক্স দিতে হবে। অভিযানে আমরা ডোর টু ডোর যাব। এ অভিযানের মাধ্যমে আমরা রাজস্বের পরিধি বাড়াব, করের পরিমাণ বাড়াব না। সবাই যাতে বাসায় বসে কর দিতে পারেন, সেজন্য অটোমেশন হবে। আগামী ১ জানুয়ারি থেকে অনলাইনে কর নেওয়া শুরু হবে। আবাসিক এলাকায় গড়ে ওঠা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে তিনি বলেন, এটির একটি বিহিত হওয়া দরকার।

উদ্বোধনের পর মেয়র বছিলায় বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক ও আবাসিক ভবন পরিদর্শন করেন। এ সময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স না থাকা, সড়কে মালামাল রাখা, অবৈধভাবে বিজ্ঞাপন প্রচার ইত্যাদি অপরাধে শাহজালাল বেকারি, সুপারশপ স্বপ্ন, ভিশন ইলেকক্ট্রনিক্স, পারটেক্স ফার্নিচার, মির সিরামিক, কাই অ্যালুমিনিয়ামের কাছ থেকে পাঁচ লাখ ৬০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। মোহাম্মদপুরের কাদেরিয়া আবাসিক এলাকার এক ব্যক্তি যথাযথভাবে হোল্ডিং ট্যাক্স পরিশোধ করায় মেয়র তাকে স্যালুট জানান।

ডিএনসিসি সূত্র জানায়, চলমান অভিযানে কর-বহির্ভূত স্থাপনাকে করের আওতায় আনা হবে। এ ছাড়া ট্রেড লাইসেন্সবিহীন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান চিহ্নিত করা ও ট্রেড লাইসেন্সের আওতায় আনা, মেয়াদ উত্তীর্ণ ট্রেড লাইসেন্সের বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান চিহ্নিত করা ও সেগুলোকে নবায়নের আওতায় আনা হবে।

অভিযান উদ্বোধকালে ডিএনসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম রেজা, সচিব রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়া, প্রধান প্রকৌশলী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আমিরুল ইসলাম, প্রধান রাজস্ব্ব কর্মকর্তা আবদুল হামিদ মিয়া, ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসিফ আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।