দেশ ও সমাজের নানা ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য অবদান রাখা তরুণদের অনুপ্রেরণার লক্ষ্যে প্রবর্তিত এবারের 'জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড' পেয়েছে ৩০টি যুব সংগঠন।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় মঙ্গলবার রাত ৮টায় 'জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০' বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করেন। সংগঠনগুলোর নাম ঘোষণা করে তাদের অভিনন্দনও জানান তিনি।

১২টি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পাওয়া সারাদেশের ৩০ যুব সংগঠনকে পরে দেওয়া হবে ক্রেস্ট, সনদ ও একটি করে ল্যাপটপ।

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে তরুণ প্রজন্মকে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণের আহ্বান জানান সজীব ওয়াজেদ জয়। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ যতদিন ক্ষমতায় থাকবে ততদিন বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

আওয়ামী লীগের গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) তরুণদের প্রতিষ্ঠান 'ইয়াং বাংলা' আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন তিনি।

করোনা পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনৈতিক ধারা এখনো উন্নতির দিকে রয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন হয়েছে বলেই করোনা পরিস্থিতিতেও দেশের অর্থনীতি মুখ থুবরে পড়েনি। উন্নত অনেক দেশ বড় অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়েছে। কিন্তু নেতৃত্বগুণে আমরা এখনো উন্নতি করছি।

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে যখন বিভিন্ন উন্নত দেশে মৃত্যুহার অনেক বেশি, সেখানে বাংলাদেশের মৃত্যুহার কম। একটি মৃত্যুও অবশ্য কাম্য নয়। উন্নত দেশগুলো তাদের মেধাবী ডাক্তারদের কথা শোনেনি। কিন্তু আমরা শুনেছি।

সিআরআই'র চেয়ারম্যান সজীব ওয়াজেদ বলেন, বাংলাদেশ তার প্রতিষ্ঠাকালীন মূলনীতি ধর্মনিরপেক্ষতা থেকে সরে যেতে পারে না। আমরা যে ধর্মেরই হই না কেন, আমরা সবাই বাঙালি।

তরুণ সংগঠকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, 'প্রতিবার আপনাদের দেখে আমি অনুপ্রাণিত হই। আমাদের দেশে নালিশ করার একটা সংস্কৃতি রয়েছে। কিন্তু এই তরুণদের দেখুন, তারা নালিশ না করে নিজ সমাজের সমস্যা সমাধানে নিজ মেধা ও পরিশ্রম দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। অন্যের দিকে তাকিয়ে না থেকে নিজে নেতৃত্ব দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। যারা এখানে পুরস্কার পেয়েছেন এবং যারা পুরস্কার পাননি তাদের সবাইকে ধন্যবাদ। কেননা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল, তিনি বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন। আপনারা সেই কাজটি করছেন।'

গত তিনটি আয়োজনের ধারাবাহিকতায় এবারো দেশ গঠনে কাজ করে যাওয়া তরুণদের ৬০০ সংগঠন থেকে প্রাথমিক বাছাইয়ের পর ৪৭টি সংগঠন 'জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড' এর জন্য মনোনয়ন পায়। তাদের মধ্য থেকেই পুরস্কারের জন্য চূড়ান্তভাবে ৩০টি সংগঠনকে বেছে নেওয়া হয়। প্রাথমিকভাবে বাছাইয়ে থাকা বাকি ১৭টি সংগঠনও একটি করে ক্রেস্ট পাবে।

শহীদ বুদ্ধিজীবীর সন্তান ডা. নূজহাত চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সিআরআই'র ট্রাস্টি এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

বিজয়ী শীর্ষ ৩০ সংগঠন: এবারের 'জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড' প্রাপ্ত ৩০টি সংগঠন হচ্ছে- ব্লাডমেন হেলথ কেয়ার, মাস্তুল ফাউন্ডেশন, ওয়ার্ল্ড ইয়ুথ আর্মি, সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজান, মিশন সেইভ বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন, ফুটস্টেপ বাংলাদেশ, সেফটি ম্যানেজমেন্ট ফাউন্ডেশন, প্লাস্টিক ইনিশিয়েটিভ নেটওয়ার্ক (পিআইএন), ইয়ুথ এনভায়রনমেন্ট সোশ্যাল ডেভলপমেন্ট সোসাইটি, সাইকিওর অর্গানাইজেশন, দিপ মেডিকেল সার্ভিসেস ও দিপাশা ফাউন্ডেশন, পহরচাঁদা আদর্শ পাঠাগার, উত্তরণ যুব সংঘ, সিনেমা বাংলাদেশ, হ্যাপি নাটোর, ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়, অভিযাত্রিক ফাউন্ডেশন, মিজারেবল ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন, হাতে খড়ি ফাউন্ডেশন, এক টাকায় শিক্ষা, গুডফিল্ম, উন্মেষ, ইগনাইট ইয়ুথ ফাউন্ডেশন, আইটেক স্কুল, পজিটিভ বাংলাদেশ, দেশি বলারস, ইয়ুথ ফর চেঞ্জ বাংলাদেশ, সেন্টার ফর রাইটস এন্ড অ্যাম্প: ডেভলপমেন্ট অব পার্সন উইথ ডিসঅ্যাবিলিটিস, বাংলাদেশ হুয়িল চেয়ার স্পোর্টস ফাউন্ডেশন এবং হবিগঞ্জ অ্যাসোসিয়েশন ফর অটিজম এন্ড সোশ্যাল ইমপ্রুভমেন্ট,

এ ছাড়া জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত অপর ১৭ সংগঠন হচ্ছে- পেন ফাউন্ডেশন, মেঘ ফাউন্ডেশন, ইন্সপায়ারেশেন ফর হিউম্যান ওয়েলফেয়ার, খুলনা ব্লাড ব্যাংক অ্যান্ড খুলনা ফুড ব্যাংক, স্টার্ট আপ চট্টগ্রাম, গ্লোবাল আনট্রপ জেপ অ্যান্ড এএমপি, অবলাইজিং অর্গানাইজেশন অব বাংলাদেশ (জিইউজেডওওবি), আশ্রয়, সেলফ প্রটেক্ট, নিঃসংকোচ ফাউন্ডেশন, ইয়ুথ স্কুল ফর সোশ্যাল অন্টপ্রনারস্‌ (ওয়াইএসএসই), টিম ব্যর্থ, জাগ্রত তারুণ্য, উই আর ফর দেম, সোশ্যাল ক্যানভাসারস, বাংলাদেশ মেডিকেল স্টুডেন্ট সোসাইটি এবং ফিজিক্যাল চ্যালেঞ্জ ডেভলপমেন্ট ইউনিভার্সিটি (পিডিএফ-জেইউ)।