জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে ‘অনুভূতি বাংলাদেশ’ নামের একটি সংগঠন।

রাজধানীর শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে বুধবার এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদ ও স্মৃতি পাঠাগার ছাত্র ফেডারেশন-এর কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ একত্বতা প্রকাশ করে অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে ‘অনুভূতির বাংলাদেশ’ এর পক্ষে সভাপতিত্ব করেন শেখ রাসেল এবং পরিচালনা করেন মো. আরিফুজ্জামান রোহান। এতে বক্তব্য দেন- দেশবরেণ্য ভাস্কর্য শিল্পী রাশা, ‘অনুভূতির বাংলাদেশ’ এর শীর্ষ সংগঠক কামরুজ্জামান সুইট, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল, সাধারণ সম্পাদক আল মামুন, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের ঢাবি সভাপতি সনেট মাহমুদ প্রমুখ।

প্রধান বক্তা হিসেবে দেশবরেণ্য ভাস্কর্য শিল্পী রাশা বলেন, পাকিস্তানের প্রেতাত্মারা নাকি জাতির পিতার ভাষ্কর্য বুড়িগঙ্গায় ভাসাবে, এত বড় হুমকি দেয়ার পরও কেন তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছেনা? মাদ্রাসায় সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধি দিয়ে মনিটরিং সেল গঠন করতে হবে।

কামরুজ্জামান সুইট বলেন, জাতির পিতার ভাষ্কর্য আঘাত করার সাহস দেখিয়ে তারা তাদের আসল পরিচয় প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ এবং জাতির পিতার প্রশ্নে অনুভূতির বাংলাদেশ আগামী দিনেও এবারের মত সকল প্রগতিশীল সংগঠনকে পাশে নিয়ে সকল অপশক্তির বিরদ্ধে রাজপথে সরব থাকবে।

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের কেন্দ্রীয় সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের শক্তি একত্রিত হয়ে এই ধর্মব্যবসায়ীদের উৎখাত করবো। দেশরত্ব শেখ হাসিনা আছে বলেই আমরা আজ শাহবাগে দাঁড়াতে পেরেছি, কিন্তু তারা চায় শেখ হাসিনাকেই ক্ষমতাচ্যুত করতে। পাকিস্তানের প্রেতাত্মাদের এই বাংলাদেশ থেকে উৎখাত করে ছাড়বে।

সভাপতির বক্তব্যে শেখ রাসেল বলেন, আজকের সূচনা আয়োজনে আমাদের পাশে যারা দাঁড়িয়েছেন সংশ্লিষ্ট সকল সংগঠন এর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের কাছে ‘অনুভূতির বাংলাদেশ’ সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

মো. আরিফুজ্জামান রোহান বলেন, আমরা কখনও এই বাংলাদেশকে পাকিস্তান হতে দিবনা এবং জঙ্গীবাদ ও মৌলবাদের আস্তানা আমাদের বাংলাদেশে হবে না।


বিষয় : শাহবাগে মানববন্ধন

মন্তব্য করুন