ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) সাবেক ও বর্তমান মেয়রের পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রয়োজনে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, সাঈদ খোকন ও শেখ ফজলে নূর তাপসের পরস্পরের বিরুদ্ধে অভিযোগ উত্থাপিত হতে পারে। তবে প্রয়োজনে তদন্ত সাপেক্ষে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শনিবার ঢাকা ওয়াসা ভবনে সরকারি-বেসরকারি ব্যাংককে ঢাকা ওয়াসা কর্তৃক 'বিল কালেকশন অ্যাওয়ার্ড-২০১৯-২০' প্রদান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

ফুলবাড়িয়া সুপার মার্কেট ও সুন্দরবন স্কয়ার সুপার মার্কেটের নকশাবহির্ভূত দোকান উচ্ছেদ নিয়ে সম্প্রতি সাবেক মেয়র সাঈদ খোকনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় ফুলবাড়িয়া দোকান মালিক সমিতির সভাপতি দেলোয়ার হোসেন সাঈদ খোকনসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে ৩৪ কোটি টাকা উৎকোচ গ্রহণের অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করেন। পরে সাঈদ খোকন অভিযোগ করেন, ব্যারিস্টার তাপস ডিএসসিসির শত শত কোটি টাকা তার মালিকানাধীন মধুমতি ব্যাংকে স্থানান্তর করে কোটি কোটি টাকা লভ্যাংশ নিচ্ছেন। এ কারণে সিটি করপোরেশনের আইন অনুযায়ী তিনি মেয়র পদে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘ডিএসসিসির বর্তমান মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এবং সাবেক মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকনের দ্বন্দ্ব অচিরেই সমাধান হবে। মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে মতপার্থক্য থাকতেই পারে। কিন্তু একটা সময় তা ঠিক হয়ে যায়। দুই মেয়রের দ্বন্দ্ব অচিরেই সমাধান হবে।’

রাজধানীর খাল ও ড্রেনেজ ব্যবস্থা দুই সিটি করপোরেশনের কাছে হস্তান্তর প্রসঙ্গে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে কর্মপরিকল্পনা ঠিক করতে দুই সিটি করপোরেশনকে নিয়ে আগামী সপ্তাহে বৈঠক করা হবে। ঢাকা শহরের নাগরিক সমস্যা সমাধান করে একটি আধুনিক বাসযোগ্য দৃষ্টিনন্দন শহর করতে যা যা করা দরকার তা করা হবে।’

অনুষ্ঠানে সরকারি-বেসরকারি ৩৭টি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রতিনিধির হাতে ‘বিল কালেকশন অ্যাওয়ার্ড’ তুলে দেন মন্ত্রী। এসব ব্যাংকে ওয়াসার বিল জমা দেন গ্রাহকরা।

অনুষ্ঠানে ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক তাকসিম এ খান বলেন, ঢাকা ওয়াসা প্রতিদিন ২৬৪ কোটি লিটার পানি উৎপাদন করছে, যা দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশের তুলনায় অনেক বেশি।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা ওয়াসা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. গোলাম মোস্তফা, স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. ইব্রাহিম প্রমুখ।