জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সল আরেফিন দীপনকে হত্যার মামলার রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন তার স্ত্রী রাজিয়া রহমান।

বুধবার দুপুরে রায় ঘোষণার পর আদালত কক্ষের ভেতরে নীরবে বসে কাঁদছিলেন তিনি। পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, আমি খুব অসুস্থ, কাল আমার মামা মারা গেছেন। আমরা এই রায় নিয়ে সন্তুষ্ট।

রাজিয়া রহমান বলেন, আজকে আমরা যে রায় পেয়েছি, এটার জন্য সংশ্লিষ্ট যারা ছিলেন, তাদের সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

এর আগে প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যা মামলায় আট আসামির সবার মৃত্যুদণ্ড দেন আদালত। ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান আলোচিত এ মামলার রায় ঘোষণা করেন।

আট আসামির সবাইকে সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে রায়ে।

সকালে বিশেষ ব্যবস্থায় মামলার আট আসামির মধ্যে ছয়জনকে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে হাজির করা হয়। মামলার শুরু থেকেই বাকি দুই আসামি পলাতক রয়েছেন।

২০১৫ সালের ৩১ অক্টোবর রাজধানীর শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে জাগৃতি প্রকাশনীর কার্যালয়ে ফয়সল আরেফিন দীপনকে কুপিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হকের ছেলে দীপন। দীপনকে হত্যার পর ওই দিনই তার স্ত্রী রাজিয়া রহমান শাহবাগ থানায় মামলা করেন।