উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ক্ষুব্ধ হয়ে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর শেখদি এলাকায় মা-মেয়েসহ তিনজনকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে এক ব্যক্তি। এ ঘটনায় অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর আলম ওরফে পরানকে সোমবার নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের সানারপাড়া থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

এ সময় জানানো হয়, শেখদি এলাকার দুই নম্বর সড়কের একটি বাড়ির পঞ্চম তলায় ভাড়া থাকে ভুক্তভোগী ওই পরিবার। পরিবারের কর্তা জুয়েলারি ব্যবসায়ী। রোববার সন্ধ্যায় তার স্ত্রী (৩৮) ও মেয়েকে (১৬) এবং বাড়ির মালিক রুহুল কুদ্দুসকে (৩৮) চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে আহত করে পরান। রুহুল বাড়ির ছয়তলায় থাকেন। পরান এক সময় ওই বাড়িতে থাকত। তিনজনকে কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় পরানকে আসামি করে যাত্রাবাড়ী থানায় মামলা হয়। র‌্যাব-১০ মামলার ছায়া তদন্ত শুরু করে।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১০ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মাহফুজুর রহমান জানান, সাত-আট বছর আগে রুহুল কুদ্দসের বাসায় থাকত পরান। ওই সময় সে ওই গৃহবধূর সঙ্গে বিয়ে-বহির্ভূত সম্পর্ক গড়ার চেষ্টা করে; নানাভাবে তাকে উত্ত্যক্ত করত। রুহুল বিষয়টি জানতে পেরে পরানকে বাসা থেকে বের করে দেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওই নারীর পরিবার ও রুহুলের ক্ষতি করার চেষ্টা করে পরান। রোববার রুহুলের বাসায় গিয়ে তাকে চাপাতি দিয়ে কোপায় সে। এ সময় রুহুলের চিৎকারে ওই নারী ও তার মেয়ে ছুটে এলে তাদেরও সে চাপাতি দিয়ে কোপায়।