ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী আফসীন আহমেদ তৃষা (২৭) সপ্তাহখানেক আগে যোগ দেন একটি আইটি প্রতিষ্ঠানে। সোমবার বিকেলে কাজ শেষ করে বনানীর আওয়াল টাওয়ারের অফিস থেকে বেরও হন। কিন্তু অফিসের নিচে সড়কেই মিলল তার নিথর দেহ। পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহতের স্বজনদের বরাতে পুলিশ বলছে, আফসীন বিষণ্নতায় ভুগছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি ভবনের সিঁড়িঘরের ফাঁকা দিয়ে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করতে পারেন। আফসীনের স্বামী সানাউল কবির সিদ্দিক পুলিশকে বলেছেন, আফসীন চার বছর আগে বাবাকে হারিয়েছেন। মা ক্যান্সারে ভুগছেন। তার ছোট একটি ভাই রয়েছে। এ জন্য সে দীর্ঘদিন ধরেই বিষণ্ন ছিল। কিন্তু এভাবে সবাইকে ছেড়ে চলে যাবে, তা তিনি কল্পনাও করতে পারছেন না।

বনানী থানার ওসি নূরে আজম মিয়া সমকালকে বলেন, বিকেল ৪টার দিকে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে আওয়াল টাওয়ারের নিচ থেকে আফসীনের লাশ উদ্ধার করেন তারা। শুরুর দিকে পরিচয় নিশ্চিত হতে না পারলেও পরে জানতে পারেন, ওই ভবনের ১৪ তলায় তিনি একটি আইটি ফার্মের কর্মী ছিলেন। পরে সেখান থেকে সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করে দেখতে পান, তিনি খুব স্বাভাবিকভাবে অফিস থেকে বের হয়ে আসছেন। ধারণা করা হচ্ছে, এর পরই কোনো তলা থেকে লাফিয়ে পড়ে আত্মহত্যা করেছেন। ওই ভবনের সিসি ক্যামেরা ফুটেজ যাচাই করা হচ্ছে।

আফসীনের স্বজনরা বলছেন, মেধাবী ছাত্রী আফসীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা ইনস্টিটিউট (আইবিএ) থেকে স্নাতক করেছিলেন। চমৎকার লেখালেখির পাশাপাশি গিটার বাজিয়ে গানও গাইতেন তিনি।