অসম্ভবকে সম্ভব করাই যেনো অনন্ত জলিলের কাজ।শনিবার সন্ধ্যায় আনুষ্ঠানিক আয়োজন করে ফের কথাটির সঙ্গে প্রমাণ করে দিলেন বিষয়টি। মাস খানেক আগেও দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমার জনপ্রিয় খল তিন খল অভিনেতা  কবির দুহান সিং, তরুণ অরোরা ও প্রদীপ রাওয়াত যে ঢাকার কোনো ছবিতে অভিনয় করবেন তা দেশের দর্শকদের কাছে ছিলো কল্পণাতীত। এই অসম্ভবই যেনো সম্ভব হয়ে উঠলো অনন্ত-বর্ষার জন্য। 

অনন্ত জলিলের সদ্য শুটিং শেষ করা সিনেমা 'দিন দ্য ডে'। ছবিটি আসন্ন ঈদে মু্ক্তি পাবে বলে জানিয়েছেন অনন্ত। ছবিটি মুক্তির আগেই মাস খানেক হয় ‘নেত্রী : দ্য লিডার’  নামে নতুন ছবির ঘোষণা দেন। 

এই দুই ছবির জন্যই শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর পাঁচ তারকা হোটেলে হয়ে গেলো জাকজমকপূর্ণ আয়োজন। অনন্ত বর্ষার সন্ধ্যার এ আয়োজনে অংশ নিতেই ভারত থেকে উড়ে আসেন দক্ষিণ ভারতীয় সিনেমার জনপ্রিয় খল অভিনেতা কবির দুহান সিং, তরুণ অরোরা ও প্রদীপ রাওয়াত।

শুধুই এই তিন অভিনেতা? হাজির হোন তুর্কী‘সেফকাত তেপে’ এবং ‘ভ্যালি অব দ্যা উল্ভস’ এ অভিনয় করা আলোচিত তারকা এরতুগ্রুল সাকারসহ দেশটির একঝাঁক অভিনেতা।  হাজির ছিলেন দিন দ্য ডে ছবির ইরানি অভিনেতারাও। 

চার দেশের তারকাশিল্পীদের নিয়ে অনন্ত-বর্ষার এ আয়োজনে ছিলো মানুষের ঢল। ফলে কিছুটা বিশৃংঙ্খল পরিস্থিতিরও সৃষ্টি হয়। কিন্তু এই বিশৃংঙ্খলতা টপকে অনুষ্ঠান উজ্জল করে কবির দুহান সিং, তরুণ অরোরা ও প্রদীপ রাওয়াতের অভিনেতারা। 

ঝলমলে আয়োজনে  যখন দক্ষিণী এই তিনি অভিনেতা মঞ্চে উঠেন সবাই হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান তাদের। সালাম আদাব দিয়ে শুরু করেন নেত্রী ছবিতে যুক্ত হওয়ার গল্প। সেই সঙ্গে অনন্ত জলিলকে সমৃদ্ধ করেন প্রশংসায়। 

রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে অ্যাকশনধর্মী সিনেমা 'নেত্রী- দ্য লিডার'। এর মূল চরিত্রে থাকছেন বর্ষা। আর  অনন্ত জলিল অভিনয় করবেন বর্ষার দেহরক্ষী হিসেবে। এছাড়া দেখা যাবে ইলিয়াস কাঞ্চন, কাজী হায়াতের পাশাপাশি তুরস্কের প্রথম সারির বেশ কয়েকজন শিল্পীকেও।

অনন্ত জলিল জানান, ‘একজন সাধারণ মেয়ের নেত্রী হয়ে উঠার গল্প নিয়ে নির্মিত হবে ‘নেত্রী : দ্য লিডার’ সিনেমাটি। এখানে দেখানো হবে সিলেট বিভাগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নারী নেত্রীর গল্প। ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে সিলেটে শুরু হবে অনন্ত-বর্ষা জুটির নতুন সিনেমার চিত্রায়ণ। এরপর ভারতের হায়দরাবাদ ও তুরস্কের বিভিন্ন লোকেশেনও হবে শুটিং’।

এই ছবিতে অভিনয়ের পাশাপাশি চিত্রনাট্য ও পরিচালনাও করছেন অনন্ত। বাংলাদেশ ও তুরস্কের যৌথ প্রযোজনায় এতে থাকছেন আরও দু'জন পরিচালক। একজন তামিল পরিচালক উপেন্দ্র মাধব। অন্যজন তুরস্কের। তুরস্কের ১৯৫৮ ফিল্মস ইয়াপিমের সঙ্গে সিনেমাটি যৌথভাবে প্রযোজনা করছে মুনসুন ফিল্মস।