ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে মতিঝিল এলাকায় বিক্ষোভ ও সংঘর্ষের ঘটনায় আটক ‘শিশুবক্তা’ রফিকুল ইসলামকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে মতিঝিল থেকে আটকের কয়েকঘণ্টা পর বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সৈয়দ নুরুল ইসলাম জানান, বিক্ষোভ ও পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় মতিঝিল থেকে ‘শিশুবক্তা’ রফিকুলসহ ৩৩ জনকে আটক করা হয়েছিল। তবে কয়েক ঘণ্টা পর বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে রফিকুলকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে আটক আছেন ৩২ জন।

এদিকে দুপুরে আটকের পর পুলিশভ্যান থেকে ফেসবুক লাইভে এসে রফিকুল ইসলাম বলেন, 'পুলিশ আমাদের উপর আঘাত করেছে। আমরা দেশবিরোধী না, ইসলামবিরোধী না, আমরা মোদিবিরোধী।' 

এর আগে দুপুরে মতিঝিল শাপলা চত্বরে যুব অধিকার পরিষদের ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়। এতে অংশ নেন বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা। এক পর্যায়ে পুলিশ বাধা দিলে দু'পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও সাউন্ড গ্রেনেড ছোড়ে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন। প্রায় ৩০ মিনিট ধরে চলা এ সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হন।

বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত ১০ দিনের অনুষ্ঠান ‘মুজিব চিরন্তন’-তে যোগ দিতে ২৬ মার্চ বাংলাদেশ সফরে আসবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।