সুনামগঞ্জের শাল্লায় হিন্দুপল্লিতে হামলার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারসহ কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন নাগরিক প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর বুধবার দুপুরে ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে আট দফা সুপারিশ তুলে ধরে তা বাস্তবায়নের আহ্বান জানান।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক এবং প্রতিনিধি দলের সদস্য ড. রোবায়েত ফেরদৌস।

গত ২৬ থেকে ২৭ মার্চ সিপিবির কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স, নাগরিক উদ্যোগের নির্বাহী পরিচালক জাকির হোসেন, জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা তনিমা সিদ্দিকী, প্রবীণ কৃষকনেতা অমর চাঁদ দাস, উন্নয়ন সংস্থা এএলআরডি সহকারী প্রকল্প সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট রফিক আহমেদ সিরাজী, আইইডির সহসমন্বয়কারী হরেন্দ্র নাথ সিং, আদিবাসী ফোরামের তথ্য ও প্রচার সম্পাদক দীপায়ন খীসা, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ হাসেম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে হিন্দুপল্লিতে হামলা ও লুটপাটের মূল হোতাদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি, ব্যর্থ মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা, কৃষিনির্ভর গ্রামের লোকজনের জীবন ও জীবিকা নিশ্চিত করা, বোরো ধান ঘরে তোলার নিশ্চয়তা দেওয়া, ঝুমন দাশ আপনের মা নিভারানী দাশের মায়ের মামলা এজাহার হিসেবে গ্রহণ করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষার্থীদের শিক্ষাসামগ্রীর জন্য নগদ অর্থ দেওয়া, আতঙ্কিত নারী ও শিশুদের জন্য কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থা, ক্ষতি পূরণ, ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর পুনঃনির্মাণ, ও হিন্দুপল্লিতে স্থায়ী পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপনের দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন, ধর্মীয় উম্মাদনা ছড়িয়ে একটি গোষ্ঠী আপামর মানুষের অন্তরে সাম্প্রদায়িকতা ছড়ানোর চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। রাজনৈতিক দল ও সরকারকে এই সাল্ফপ্রদায়িক শক্তিকে মদদ দেওয়া বন্ধ করতে হবে। মানবিক ও অসাল্ফপ্রদায়িক প্রশাসন গড়ে তুলতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে সমুন্নত রাখাতে সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকার আহ্বান জানান বক্তারা।



মন্তব্য করুন