স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আক্রান্ত রোগীর চাপ সামলাতে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা হিমশিম খাচ্ছেন। আক্রান্তদের অনেকে হাসপাতালে গিয়েও চিকিৎসা পাচ্ছেন না। কারণ কভিডে আক্রান্ত রোগীদের জন্য নির্ধারিত সাধারণ শয্যা থেকে শুরু করে আইসিইউ কোনো কিছুই ফাঁকা নেই। দ্রুত করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না এলে হাসপাতালে রোগীদের জায়গা দেওয়া সম্ভব হবে না।

বুধবার বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় হাসপাতালে কভিড শয্যা বাড়ানোর উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, রোগী বৃদ্ধির কারণে প্রায় সব হাসপাতালে শয্যা বাড়ানোর চেষ্টা করছি। সাধারণ রোগীর শয্যা কমিয়ে করোনা রোগীদের জন্য বাড়তি শয্যার ব্যবস্থা করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। করোনা রোগী বৃদ্ধির ফলে স্বাস্থ্যসেবার ওপর বিরাট চাপ সৃষ্টি হয়েছে। চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন। তবুও তাদের ছুটি দিতে পারছি না।

জাহিদ মালেক বলেন, করোনা রোগীদের চাপ বাড়ছে। এতে অন্য রোগীরা বিশেষ করে মা ও শিশুরা যথাযথ সেবা পাচ্ছেন না। একই সঙ্গে ক্যান্সার, কিডনি, হৃদরোগীসহ অন্য রোগীদের চিকিৎসাও ব্যাহত হচ্ছে।

টিকা প্রসঙ্গে ধনী দেশগুলোর সমালোচনা করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের সব দেশের জনগণের জন্যই টিকা নিশ্চিত করা প্রয়োজন। শুধু উন্নত দেশকে টিকা দিলেই সমস্যার সমাধান হবে না। কারণ বিশ্বের যে কোনো প্রান্তে এই ভাইরাস অবশিষ্ট থাকলে তা আবার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়বে। সুতরাং সবার জন্য টিকার নিশ্চয়তা প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব লোকমান হোসেন, চিকিৎসা, শিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগের সচিব আলী নূর, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাসার মোহাম্মদ খুরশীদ আলমসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন