ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অভিযান চালিয়ে ২৮টি স্বর্ণবার জব্দ করেছেন শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর কর্মকর্তারা। 

শুক্রবার দুবাই-ঢাকা বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটের সিটের নিচে পরিত্যক্ত অবস্থায় ওই স্বর্ণবার পাওয়া যায়।

বিমানবন্দর শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা জানান, জব্দ করা স্বর্ণের বারের ওজন সোয়া ৩ কেজি। যার বর্তমান বাজার মূল্য ২ কোটি ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা। পাচারের উদ্দেশে উড়োজাহাজের সিটের নিচে এসব স্বর্ণবার লুকিয়ে রেখেছিলেন বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে আসা একশ্রেণির যাত্রীবেশী চোরাকারবারি।

কর্মকর্তারা জানান, বৃহস্পতিবার রাত ২টার দিকে বিমানবন্দরে অবতরণ করে বাংলাদেশ বিমানের এই বিশেষ ফ্লাইট। এসময় গোপন সংবাদে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের সহকারী পচিালক মো. ইফতেখার আলম ভুঁইয়ার নেতেৃত্বে বিমানের এ ফ্লাইটে অভিযান চালানো হয়।

এ ব্যপারে শুল্ক গোয়েন্দার সহকারী পরিচালক মো. ইফতেখার আলম ভুঁইয়া সমকালকে জানান, আগে থেকেই শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মো. আব্দুর রউফের কাছে গোপন সংবাদ ছিল বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইটে (দুবাই-ঢাকা) স্বর্ণের চালান বহন করবে যাত্রীবেশী চোরাকারবারি। এমন সংবাদের ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে বিমানবন্দরে বৃদ্ধি করা হয় শুল্ক গোয়েন্দার নজরদারি। যাত্রীরা নামার পর তাতে অভিযান চালায় শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

তিনি আরও বলেন, জব্দ স্বর্ণবারের বাজার মূল্য ২ কোটি ৬ লাখ ২৫ হাজার টাকা। এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।

কর্মকর্তারা জানান, এ নিয়ে গত ৬ মাসে বিমানবন্দরে অভিযান চালিয়ে বাংলাদেশ  বিমানের ভেতর থেকে ৬টি চোরাই স্বর্ণবারের চালান থেকে প্রায় ৩০ কেজির বেশি স্বর্ণবার জব্দ করা হয়েছে। তবে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে শনাক্ত করা যায়নি।

এ ছাড়া বেসরকারি  ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি খাবারের গাড়ি থেকে থেকে ৭ কেজি স্বর্ণবার জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় ইউএস বাংলার ৮ কর্মীকে আটক করে বিমানবন্দর থানায় সোপর্দ করা হয়। এ নিয়ে বিমানবন্দর-কেন্দ্রিক চোরাকারবারি চক্রের বহন করা মোট ৩৭ কেজি স্বর্ণ জব্দ করা হয়।

মন্তব্য করুন