রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ফের জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। রোববার সকালে তার জ্বর আসে।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের একজন চিকিৎসক এ তথ্য জানান।

ওই চিকিৎসক বলেন, ‘সকাল থেকে ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) শরীরের তাপমাত্রা কিছুটা বেশি ছিল। বিকেল থেকে তাপমাত্রা একশ’র মধ্যে ওঠানামা করছে। মেডিকেল বোর্ডের বৈঠক হয়েছে। সেখানে চিকিৎসকরা তার কিছু পরীক্ষা এবং নতুন ওষুধ দিয়েছেন।’ 

এর আগে ২৭ মে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জ্বরে আক্রান্ত হয়েছিলেন খালেদা জিয়া।

এ দিকে খালেদা জিয়ার শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে টুইট করেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। শনিবার দিবাগত রাতে এক টুইট বার্তায় মির্জা ফখরুল লেখেন, ‘আমরা উদ্বিগ্ন। দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার অ্যাডভান্স টিট্রমেন্ট দরকার, তার অসুখগুলো নিয়ে অ্যাডভান্স সেন্টারে যাওয়া জরুরি। তার হার্টের এবং কিডনির সমস্যা আছে। ফান্ডামেন্টাল কিছু সমস্যা রয়েছে, যে সমস্যাগুলো উদ্বেগজনক।’ 

২৭ এপ্রিল খালেদা জিয়া এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি হন। ৬ দিন পর ৩ মে তিনি শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে তাকে জরুরিভাবে করোনারি কেয়ার ইউনিট (সিসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। বর্তমানে তিনি হাসপাতালের কেবিনে আছেন। হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ডের তত্ত্বাবধানে বিএনপি চেয়ারপারসনের চিকিৎসা চলছে। ১১ এপ্রিল বিএনপি চেয়ারপারসন গুলশানের বাসা ‘ফিরোজা‘য় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। ৯ মে তিনি করোনা মুক্ত হলেও শারীরিক নানা জটিলতায় ভুগছেন।