ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) নতুন সংযুক্ত হওয়া ১৮টি ওয়ার্ডকে আধুনিক নগর হিসেবে গড়ে তোলার কর্মপরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি বলেছেন, 'আমাদের কিছু প্রত্যন্ত এলাকা রয়েছে যেমন যাত্রাবাড়ী, ডেমরা। এলাকাগুলোতে এখনও নগরায়ণ সম্পন্ন হয়নি, উন্নত হয়নি। নতুন এই ওয়ার্ডগুলো আগে ইউনিয়নভুক্ত ছিল। এখন করপোরেশনে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। সেগুলো নিয়ে নগরায়ণের বৃহৎ কর্মপরিকল্পনা নিয়েছি। আমরা শিগগিরই সেখানে কাজ শুরু করব।'

বৃহস্পতিবার ২৬নং ওয়ার্ডের (আজিমপুর) অন্তর্বর্তীকালীন বর্জ্য স্থানান্তর কেন্দ্রের (এসটিএস) উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ডিএসসিসি মেয়র। তিনি বলেন, আমরা ওয়ার্ডভিত্তিক এসটিএস নির্মাণ করছি। যার মাধ্যমে প্রত্যেকটা ওয়ার্ডের বর্জ্যগুলো এখানেই জমা হবে এবং এখান থেকে মাতুয়াইল ভাগাড়ে চলে যাবে। ঢাকা শহরকে সম্পূর্ণরূপে উন্মুক্ত স্থানের বর্জ্য থেকে মুক্ত রাখতে পারব।

কোরবানির পশুহাট সম্পর্কে মেয়র বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে আমরা মাত্র ১৩টি হাট ইজারা দিয়েছি এবং করোনা পরিস্থিতি মাথায় রেখে সেগুলোকে দূরে দূরে দিয়েছি। হাটগুলোতে যাতে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মানা হয় সে জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে।

পরে মেয়র তাপস আজিমপুর ও বঙ্গভবনের দক্ষিণ-পশ্চিম পাশে জলাবদ্ধতা নিরসনে চলমান উন্নয়ন কার্যক্রম, ২৫নং ওয়ার্ডের সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণের জন্য প্রস্তাবিত স্থান এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ্‌ হলে মুসা খাঁ ও ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্‌র সমাধিস্থল পরিদর্শন করেন।

এ সময় ডিএসসিসির প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর বদরুল আমিন, প্রধান প্রকৌশলী রেজাউর রহমান, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী কাজী মো. বোরহান উদ্দিন, খায়রুল বাকের প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বিষয় : মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ডিএসসিসি

মন্তব্য করুন