বগুড়ার শেরপুরে করতোয়া নদী সংলগ্ন নার্সারি থেকে খলিলুর রহমান (২০) নামের এক কলেজ ছাত্রের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার উপজেলার গাড়ীদহ মধ্যপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত খলিল শেরপুর সরকারি কলেজের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ছাত্র। নিহতের বাবার নাম আজাহার আলী।

নিহতের চাচা সাইদুর রহমান জানান, রোববার সন্ধ্যায় বাড়ি থেকে বের হন খলিলুর রহমান। এরপর আর ফেরেনি। পরদিন সোমবার সকালের দিকে বাংড়া গ্রামের করতোয়া নদী সংলগ্ন নার্সারির মধ্যে কাদামাখা লাশ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। পরে পুলিশে খবর দিলে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়।

তিনি আরও বলেন, ভাতিজাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি।

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বলেন, নিহতের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন নেই। এটি হত্যা নাকি দুর্ঘটনা তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।