এডিস মশা নির্মূল করে ১৫ অগাস্টের মধ্যে রাজধানীকে ডেঙ্গু মুক্ত করতে রাজধানীর দুই সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলরসহ সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। 

রোববার বিকেলে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নগর ভবনের মেয়র হানিফ অডিটোরিয়ামে 'ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও এডিস মশা নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম জোরদারকরণ' বিষয়ে মতবিনিময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। 

তিনি জানান, প্রতি ওয়ার্ডকে দশটি সাব-জোনে ভাগ করে সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে অন্তর্ভুক্ত করে কমিটি গঠনের মাধ্যমে করোনা, ডেঙ্গুসহ সকল সমস্যা মোকাবেলা করার পাশাপাশি সব ধরনের সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে। 

তাজুল ইসলাম বলেন, ‘জনপ্রতিনিধিরা যদি জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে সম্মিলিতভাবে কাজ করে তাহলে যেকোনো সমস্যা মোকাবেলা করা সম্ভব। সম্মিলিত প্রচেষ্টা কখনও ব্যর্থ হয় না।’

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে আনতে ঢাকায় চিরুনি অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে উল্লেখ করে মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ‘বারবার সচেতন করার পরেও মানুষ সচেতন হচ্ছে না। সরকারের কাজ হচ্ছে মানুষকে সচেতন করা এবং সেই কাজ সরকার প্রতিনিয়ত করে যাচ্ছে। এখন মানুষ যদি সচেতন না হয়ে এডিস মশার প্রজননে ভূমিকা রাখেন। সেই মশার কামড়ে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হবেন। নানা সমস্যায় ভুগবেন আর চিৎকার করে সরকারকে দোষ দিবেন। এটি সমীচীন হবে না। আপনারা নিজে সচেতন না হলে সরকার আপনাকে রক্ষা করতে পারবে না।’ 

রোববার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংখ্যক ২৩৭ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে রাজধানী ঢাকায় ২১৮ জন এবং ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ১৯ জন। 

তাদের নিয়ে সারাদেশের হাসপাতালে ভর্তি মোট ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৬২ জন। ভর্তি রোগীদের মধ্যে ঢাকার হাসপাতালে ৮২৮ এবং ঢাকার বাইরে ৩২ জন ভর্তি রয়েছেন। এ বছর ডেঙ্গুতে চার জনের মৃত্যুর খবর এসেছে।

ডেঙ্গু ও চিকনগুনিয়া প্রতিরোধে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করছে। নগরবাসীদের কারও বাসা-বাড়িতে বা সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ভবনে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছে ভ্রাম্যমাণ আদাল ইতোমধ্যে অনেককে জেল ও জরিমানা প্রদান করা হয়েছে।

রোববার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১২টি নির্মাণাধীন ভবন ও বাসাবাড়িকে মোট ১ লাখ ২২ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ২২টি মামলায় ২ লাখ ৫৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে।


সিটি করপোরেশনের অনু্ষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তাজুল ইসলাম বলেন, ‘অনেক ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়ে আসল ঠিকানা গোপন রাখছেন। এতে করে এডিস মশা নিধনে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। কারণ যেখানে রোগী পাওয়া যাচ্ছে সেখানে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। তবে এটা নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে কথা হয়েছে। স্থানীয় সরকার বিভাগ, সিটি করপোরেশনের পাশাপাশি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিচ্ছে।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।