রাজধানীর ফুলবাড়িয়ায় বুধবার পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণকালে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে শ্রমিকদের অবস্থান করার অনুরোধ করলে তারা ক্ষুব্ধ হয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেন। এ অবস্থায় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস চাল বিতরণ না করেই স্থান ত্যাগ করেন। পরে অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি শ্রমিক নেতা শাজাহান খান এমপিও চলে যান। সকাল ১১টার দিকে ফুলবাড়িয়া বাসটার্মিনাল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

লকডাউন ও করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে চাল বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছিল ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। চাল বিতরণ শুরুর আগেই বিভিন্ন এলাকা থেকে সেখানে শ্রমিকরা জড়ো হতে থাকেন। অল্প সময়ের মধ্যেই অনুষ্ঠানস্থল শ্রমিকে পূর্ণ হয়ে ওঠে। শ্রমিকদের অনেকের মুখে মাস্ক ছিল না। কে কার আগে ত্রাণসামগ্রী নেবেন- এমন প্রতিযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ে। শাজাহান খান এমপি ও পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ শ্রমিকদের সুশৃঙ্খলভাবে অবস্থান করার আহ্বান জানান। এর মধ্যেই সেখানে হাজির হন মেয়র তাপস। তখন শ্রমিকরা আরও বিশৃঙ্খল হয়ে পড়েন। তারা চেয়ার ছোড়াছুড়ি শুরু করেন। এ অবস্থায় স্থান ত্যাগ করেন মেয়র। একপর্যায়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পরে শাজাহান খান শ্রমিকদের উদ্দেশে বলেন, যারা এ ধরনের বিশৃঙ্খলা তৈরি করেছে তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে। চাল বিতরণ শুরু করে দিয়ে শাজাহান খানও স্থান ত্যাগ করেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, 'আমরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই শ্রমিকদের জন্য চেয়ার দিয়েছিলাম। আমাদের স্বেচ্ছাসেবকরা সেভাবে কাজ করেছিল, কিন্তু সেটা মানা হয়নি। এসব চক্রান্ত করা হয়েছে। আমরা তাদের খুঁজে বের করব।'

এ ঘটনায় ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনাল মালিক সমিতির আহ্বায়ক সফিকুল ইসলাম ও ফুলবাড়িয়া বাস টার্মিনাল শ্রমিক কমিটির আহ্বায়ক মোখলেছুর রহমান এক বিবৃতিতে বলেন, চাল বিতরণকালে চিহ্নিত সন্ত্রাসী ও বহিরাগতরা এই মহৎ উদ্যোগকে বানচাল করার জন্য বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছে। জরুরিভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তারের দাবি জানান তারা।