কাপাসিয়া উপজেলায় বুধবার রাতে এক গৃহবধূকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে। নিহত মমতাজ বেগম (৩২) উপজেলার রায়েদ গ্রামের মো. ইউসুফের স্ত্রী এবং সিংহশ্রী ইউনিয়নের ভিটিপাড়া গ্রামের আব্দুল মোতালিবের মেয়ে।

মমতাজের ১৪ বছর বয়সী ছেলের বরাত দিয়ে আব্দুল মোতালিব জানান, বছর পনেরো আগে ইউসুফের সঙ্গে মমতাজের বিয়ে হয়। ইউসুফ বেকার জীবনযাপন করায় নানা সংকটের সময় শ্বশুরবাড়ি থেকে তাদের আর্থিক সহযোগিতা করা হতো। এসব নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর প্রায়ই ঝগড়া-বিবাদ লেগে থাকত। 

বুধবার রাতে তিন সন্তানকে নিয়ে তারা ঘুমিয়ে ছিলেন। রাত সোয়া ১টার দিকে হঠাৎ করেই মমতাজ বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করতে থাকেন। এ সময় ইউসুফ ও তার তিন সন্তান মমতাজের গলায় আঘাতের চিহ্ন দেখতে পায়। তখন প্রচুর রক্তপাত হচ্ছিল। রক্ত বন্ধ করতে তারা মমতাজের গলায় কাপড় পেঁচিয়ে রাখে। খবর পেয়ে মোতালিব সিংহশ্রী ফাঁড়ির পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। পরে মমতাজকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ বিষয়ে কাপাসিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুজ্জামান খান জানান, নিহতের গলায় ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ওই নারীর স্বামীকে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ বৃহস্পতিবার দুপুরে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হবে।