জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে সমাজসেবা অধিদপ্তর আয়োজন করে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার।

রোববার সকালে আগারগাঁওয়ে সমাজসেবা অধিদপ্তর মিলনায়তনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তযোদ্ধা মো. আশারাফ আলী খান খসরু, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আরমা দত্ত ও  সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহফুজা আখতার। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ রফিকুল ইসলাম।

বেলা ১১টা ৫ মিনিটে সমাজসেবা অধিদপ্তরে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্যদিয়ে জাতীয় শোক দিবসের কার্যক্রম শুরু হয়। আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন সমাজসেবা অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন ও অর্থ) সৈয়দ মো. নুরুল বাসির। সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের পক্ষে বক্তব্য দেন  মো. সাফায়েত হোসেন তালুকদার, অধ্যক্ষ, জাতীয় সমাজসেবা একাডেমি ও মহাসচিব, বাংলাদেশ সমাজসেবা অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, কর্মচারীদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন গোলাম ফারুক, চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ সমাজসেবা কর্মচারী কল্যাণ সমিতি।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুজ্জামান আহমেদ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শত সংগ্রামের মধ্যদিয়ে, ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা এনে দেন। শত্রুতার মুখে চুনকালি মেখে তলাবিহীন ঝুড়ির বাংলাদেশ আজ বঙ্গবন্ধুর কন্যার হাত ধরে উপচেপড়া ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে। এ যাত্রা অব্যাহত থাকবে, ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। তিনি জাতির পিতা ও তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের মাগফেরাত ও প্রধানমন্ত্রীসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের দীর্ঘায়ু কামনায় দোয়ায় অংশ গ্রহণ করেন এবং সমাজসেবা অধিদপ্তর অধীন প্রতিষ্ঠানের শিশুরা জাতির পিতার আত্মার মাগফেরাত কামনায় ৫০ হাজারবার কোরআন খতম করায় ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তযোদ্ধা মো. আশারাফ আলী খান খসরু বাংলাদেশ নামক স্বাধীন একটি রাষ্ট্র গড়ার পেছনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করেন। সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সম্মানিত সদস্য আরমা দত্ত জাতির পিতার সাথে তার পরিবারের সম্পর্ক ও আবেগের স্মৃতি তুলে ধরেন। জনগণের প্রতি সরকারি কর্মচারীদের করণীয় ও পালনীয় বিষয়ে জাতির পিতার বক্তব্য তুলে ধরে বক্তব্য দেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মাহফুজা আখতার। সভাপতির বক্তব্যে সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ রফিকুল ইসলাম বঙ্গবন্ধুর লড়াই-সংগ্রামের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এবং উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানান।