কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী কৃষি মন্ত্রণালয় সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ ও তা বাস্তবায়ন করছে। ফলে করোনাকালেও দেশে খাদ্য উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রয়েছে। গত বছরের তুলনায় এ বছর সব ফসলের উৎপাদনই বেড়েছে।

বিশ্ব খাদ্য দিবস উদযাপন উপলক্ষে রাজধানীর ফার্মগেটে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এ কথা বলেন। কৃষি মন্ত্রণালয় এবং জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন এফএওর বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট ডি. সিম্পসন।

মন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার সকলের জন্য নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের নিশ্চিত করতে সচেষ্ট রয়েছে। সেজন্য, টেকসই খাদ্য ব্যবস্থা উন্নয়নে 'জাতীয় কৃষি নীতি ২০১৮', জাতীয় কৃষি সম্প্রসারণ নীতি ২০২০' 'জাতীয় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ নীতি ২০২০' 'বাংলাদেশ উত্তম কৃষি চর্চা নীতিমালা ২০২০' এবং 'জাতীয় খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নীতি ২০২০' প্রণয়ন করা হয়েছে। এ সকল নীতির লক্ষ্য হলো খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতের মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট অর্জন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, খাদ্য দিবসে কৃষি মন্ত্রণালয় বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। শনিবার দিবসের প্রথমভাগে রাজধানীর একটি হোটেলে আন্তর্জাতিক সেমিনারের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি থাকবেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ স্মরণীয় করে রাখতে কৃষি মন্ত্রণালয় বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। তার অংশ হিসেবে এ সেমিনারে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) প্রকাশিত 'বাংলাদেশে কৃষি উন্নয়নের ১০০ বছর' শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন এবং বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) উদ্ভাবিত 'বঙ্গবন্ধু ধান ১০০' অবমুক্ত করবেন।

এ ছাড়া প্রধানমন্ত্রী 'বঙ্গবন্ধু ধান ১০০' দিয়ে নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি উন্মোচন করবেন। সেমিনারের পর শনিবার বিকেলে খাদ্য নিরাপত্তার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় করণীয় নিয়ে একটি কারিগরি সেশন অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন কৃষিমন্ত্রী।