দিনাজপুরের বোচাগঞ্জে শিক্ষিকাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। এই ঘটনায় দু'জনকে আটক করেছে পুলিশ। 

ওই আসামিরা শিক্ষককে তুলে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।

বোচাগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল হাসান বলেন, শিক্ষিকার করা মামলায় দু'জনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। 

সেখানে আসামিরা ওই শিক্ষককে তুলে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেছে। তবে ধর্ষণের কথা তারা স্বীকার করেনি। এখন মেডিকেল রিপোর্ট এলেই বিষয়টি পরিস্কার হবে।

গ্রেপ্তার আসামিরা হলো- উপজেলার সুলতানপুর আবাসনের মামুনুর রশিদ (২৬) ও সেনিহারী গ্রামের সুজন আলী (২৫)।

থানা সূত্রে জানা যায়, ১৮ অক্টোবর একটি শিশু একাডেমির ওই শিক্ষিকা নিজ কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। এ সময় আসামিরা পথরোধ করে জোর করে তুলে নিয়ে যায় তাকে। পরে তারা একটি আখক্ষেতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। 

বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকাবাসী ওই দু'জনকে আটক করে বোচাগঞ্জ থানায় খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে তাদের আটক করে নিয়ে যায়। এই ঘটনায় ভিকটিম বাদী হয়ে দু'জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। 

ওই মামলায় আসামিদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার আদালতে পাঠানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মাহবুবুর রহমান সরকার জানান, ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।