জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় জীবাশ্ম জ্বালানির পরিবর্তে পরিবেশবান্ধব ও পরিচ্ছন্ন জ্বালানির ওপর জোর দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। আসন্ন ২৬তম জলবায়ু সম্মেলনে বিশ্বের প্রতিটি দেশের জন্য এ বিষয়ে আইনি বাধ্যবাধকতা প্রতিষ্ঠিত করা প্রয়োজন বলে মনে করেন তারা।

শনিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে প্রাণ-প্রকৃতি সুরক্ষা মঞ্চ আয়োজিত জলবায়ু সম্মেলনবিষয়ক পরামর্শ কর্মশালায় এসব অভিমত উঠে আসে।

ক্যাবের জ্বালানি উপদেষ্টা শামসুল আলমের সভাপতিত্বে মঞ্চের আহ্বায়ক ব্যারিস্টার জোতির্ময় বড়ুয়ার সঞ্চালনায় কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন খুলনা-৫ আসনের সংসদ সদস্য নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, খুলনা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আক্তারুজ্জামান বাবু, অধ্যাপক ড. আইনুন নিশাত, রিভারাইন পিপল এর প্রতিষ্ঠাতা ও মহাসচিব শেখ রোকন, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ড. তারিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতির (বেলা) প্রতিনিধি বারিস হাসান চৌধুরী ও রিভার এন্ড ডেল্টা রিসার্স সেন্টারের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ এজাজ প্রমুখ। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সাংবাদিক গৌরাঙ্গ নন্দী।

বক্তারা বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে দুর্যোগের ঝুঁকি বৃদ্ধি, বাস্তুচ্যুতি, খাদ্য নিরাপত্তাহীনতা, সুপেয় পানির অপ্রতুলতা, স্বাস্থ্যঝুঁকি বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন ধরনের সমস্যা মোকাবেলা করছে বাংলাদেশের জনগণ। তাদের মধ্যে নারী ও শিশুদের কষ্ট অনেক বেশি। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সব ধরনের ক্ষয়ক্ষতির আইনি সমাধান বের করে উদ্বাস্তুদের রক্ষা ও ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ঋণ বা কারও দান নয়, ন্যায্যতা ও ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।