সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় অপরাধী যে দলেরই হোক তার বিচার হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। রোববার রাজধানীর বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে এক প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

আনিসুল হক বলেন, ‘যারা অপরাধ করবে তাদের বিচার হবে। সে যে দলেরই হোক, যে গোষ্ঠীরই হোক, যে জাতিরই হোক। অপরাধী অপরাধীই, তার বিচার হবেই।’

তিনি বলেন, ‘কুমিল্লার ঘটনার পর দেশে অস্থিতিশীলতার জন্য পীরগঞ্জসহ ২৪ জেলায় সহিংসতা করা হয়েছিল। এ ঘটনায় যারা জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে বিচার করা হবে।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘কুমিল্লার ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদে যাদের নাম উঠে আসবে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।’

আওয়ামী লীগ অসাম্প্রদায়িক রাজনীতিতে বিশ্বাস করে উল্লেখ করে আনিসুল হক বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের মানুষকেও সে দীক্ষায়ই দীক্ষিত করেছেন বলে জনগণ সাম্প্রদায়িক রাজনীতির দিকে ঝুঁকে না। সে ক্ষেত্রে কেউ যদি ব্যক্তিস্বার্থে অন্যায় করে সেটিও অন্যায় এবং তাকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।’

অনুষ্ঠানে মামলাজট নিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে প্রায় ৩৭ লাখ মামলার জট তৈরি হয়েছে। এটা নতুন করে তৈরি হয়েছে তা নয়, অতীতের পুঞ্জীভূত সমস্যা। এ জট নিরসন করতে হবে।’ 

আগামী বছর ৬ লাখ মামলা কমানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। এই জন্য বিচারক বাড়ানো হবে। এ ছাড়া মামলাজট কমানোর জন্য অবকাঠামো নির্মাণের পাশাপাশি বিগত কয়েক বছরে ১ হাজার ১৫২ জন বিচারক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আরও বিচারক নিয়োগ দেওয়া হবে, প্রক্রিয়া চলছে। এখন কোনো পদ শূন্য হওয়ার সাথে সাথে তা পূরণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানার সভাপতিত্ব অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ার, ইনস্টিটিউটের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) মো. গোলাম কিবরিয়া। মাসব্যাপী এ বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সে  সহকারী জজ ও সমপর্যায়ের ৭১ জন কর্মকর্তা অংশ নেন।