বাসমালিকদের অসহযোগিতার কারণে ঘাটারচর থেকে কাঁচপুর রুটে আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে কোম্পানির মাধ্যমে বাস চালু হচ্ছে না। সরকারি মালিকাধীন বিআরটিসির ৩০টি বাস দিয়ে আগামী ২৬ ডিসেম্বর থেকে এ রুটে পরীক্ষামূলক বাস চলাচল শুরু হবে।

রাজধানীর গণপরিবহনের শৃঙ্খলা ফেরাতে গঠিত বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির ১৯তম সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। রোববার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান কার্যালয় নগর ভবনের বুড়িগঙ্গা হলে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় কমিটির সভাপতি দক্ষিণ সিটির মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস এবং সদস্য ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

সভা শেষে আতিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের ইচ্ছার কোনো ত্রুটি ছিল না, সাধ্যমতো চেষ্টা করেছিলাম পয়লা ডিসেম্বর বাস্তবায়ন করার জন্য। কিন্তু বিভিন্ন কারণে আমরা পারিনি। ‌এর মধ্যে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে, বাসমালিকেরা আমাদের যেভাবে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন, তারা সেই প্রতিশ্রুতি রাখতে পারেন নাই।’

তিনি বলেন, এরই পরিপ্রেক্ষিতে বিআরটিসির সহযোগিতায় আগামী ২৬ ডিসেম্বর থেকে ঘাটারচর থেকে সাইনবোর্ড পর্যন্ত বাস চলাচল শুরু হবে। প্রাথমিকভাবে এ রুটে ১০০টি গাড়ি চলাচল করবে জানিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেন, বিআরটিসির পক্ষ থেকে এই রুটে ৩০টি বাস দেওয়া হবে, এ বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। প্রতিটি বাস দোতলবিশিষ্ট।

মেয়র বলেন, বাকি ৭০টি বাস ঠিক করতে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হবে। চাইলে যে কেউ এই রুটে নিয়ম মেনে ব্যক্তিমালিকানাধীন গাড়ি নামাতে পারবেন। ব্যক্তিমালিকানাধীন বাসগুলোকে ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে কমিটির কাছে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে হবে।

সভা শেষে মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘পয়লা ডিসেম্বর ঘাটারচর থেকে কাঁচপুর রুটে পাইলট প্রকল্পের অংশ হিসেবে বাস রুট রেশনালাইজেশনের মাধ্যমে বাস চালানোর ঘোষণা দিয়েছিলাম। ১ ডিসেম্বর থেকে এ রুটে বাস চালুর যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল, তা ফলপ্রসূ করা যায়নি। তিনি বলেন, দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত গণপরিবহনের যে বিশৃঙ্খলা, এ বিশৃঙ্খলায় অনেক অংশীজন রয়েছে। সবাইকে শৃঙ্খলায় আনা অত্যন্ত দুরূহের কাজ। তার পরও আমরা অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে এই কার্যক্রম হাতে নিয়েছি। আমরা সংকল্পবদ্ধ, এটাকে আমরা বাস্তবায়ন করবই।’