দিনাজপুরের বিরল উপজেলায় আট বছরের শিশুকে ধর্ষণ করা হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থা গুরুতর। তাকে দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লাইফসাপোর্টে রাখা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে বিরল উপজেলার ৫নং ভান্ডারা ইউনিয়নের ভান্ডারা পাগলাপীর গ্রামে এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় রাসেল হোসেন (২৫) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। তিনি ওই গ্রামের মৃত ওসমান গনির ছেলে। পেশায় গরু ব্যবসায়ী।

ধর্ষণের শিকার শিশুটি একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রী।

বিরল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফখরুল ইসলাম জানান, শিশুটির দিনমজুর বাবা প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবারও দুপুরে খাওয়া শেষ করে কাজে বেরিয়ে পড়েন। বিকেলে মা শিশুটিকে বাড়িতে একা রেখে গরু-ছাগলের জন্য মাঠে ঘাস কাটতে যান। এ সুযোগে ছোট্ট শিশুটিকে ধর্ষণ করেন রাসেল।

তিনি আরও জানান, ধর্ষণের পর শিশুটিকে হত্যার উদ্দেশে বারান্দার বাঁশের সঙ্গে গলায় ফাঁস লাগিয়ে দেন রাসেল। এরমধ্যেই মা বাড়িতে চলে এলে পালিয়ে যান রাসেল। পরে মা ও স্থানীয়রা শিশুটিকে উদ্ধার করে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, রাতেই অভিযান চালিয়ে রাসেলকে আটক করা হয়। এ ব্যাপারে পরিবারের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার মাসুদ রানা জানান, বিরলে ধর্ষণের শিকার শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তাকে আইসিইউতে লাইফসাপোর্টে রাখা হয়েছে।