আগামী বছরের বিজয় দিবস থেকে যাত্রী নিয়ে মেট্রোরেল চলবে বলে জানিয়েছেন মেট্রোরে‌ল কর্তৃপক্ষ ডিএম‌টি‌সিএলের ব‌্যবস্থাপনা প‌রিচালক এম এ এন ছি‌দ্দিক।

রোববার মেট্রোরেলের আগারগাঁও স্টেশনে তিনি সাংবাদিকদের একথা জানান।

এম এ এন ছি‌দ্দিক জানান, আগামী বছরের ১৬ ডিসেম্বর দিয়াবা‌ড়ী থেকে আগারগাঁও অংশে যাত্রাবাহী ট্রেন চলবে। আগামী ১২ মাস চলবে পারফরমেন্স টেস্ট, ই‌ন্টিগ্রেটেড টেস্ট এবং ট্রায়াল রান। আগামী বছরের সেপ্টেম্বরের মধ্যে ম‌তি‌ঝিল পর্যন্ত ভায়াডাক্ট নির্মাণ কাজ শেষ হবে।

তিনি আরও জানান, দিয়াবা‌ড়ী-আগারগাঁও অং‌শে আগামী বছরের ১৬ ডিসেম্বর থে‌কে ১০টি ট্রেন চলবে। দুই দিক থেকে প্রতি সাড়ে তিন মি‌নিট অন্তর ট্রেন চলবে। ম‌তি‌ঝিল পর্যন্ত রেলপথ চালু হলে এই লাইনে ২০‌টি ট্রেন চলবে। আগামী বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে ২৪ সেট ট্রেন জাপান থেকে দেশে আসবে। এর মধ্যে চার সেট ট্রেন রিজার্ভ রাখা হবে। ইতোম‌ধ্যে আট সেট এসেছে।

এর আগে রোববার রাজধানীর উত্তরার দিয়াবাড়ী থেকে আগারগাঁওয়ের পর্যন্ত যাত্রী ছাড়াই চালানো হয় মেট্রোরেল। এ বিষয়ে এম এ এন ছি‌দ্দিক জানান, পারফরমেন্স টেস্টের অংশ হিসেবে ট্রেন‌টি যাত্রীবিহীন অবস্থায় চালানো হয়। দিয়াবা‌ড়ীর উত্তরা নর্থ স্টেশন থেকে উত্তরা সেন্টার, উত্তরা সাউথ, পল্লবী, মিরপুর ১১ স্টেশন হয়ে মিরপুর-১০ স্টেশন পর্যন্ত ঘণ্টায় ১০০ কি‌লো‌মিটার গ‌তিতে চলে ট্রেন‌টি। মিরপুর-১০ পর্যন্ত আগেও ট্রেন চালানো হয়েছে। রোববার প্রথমবারের মত মিরপুর-১০ থেকে শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া স্টেশন হয়ে আগারগাঁও স্টেশন পর্যন্ত আসে ঘণ্টায় ১৫ থে‌কে ২৫ কি‌লো‌মিটার গ‌তিতে।

তিনি জানান, প্রায় ৪৫ মি‌নিট আগারগাঁও স্টেশ‌নে ট্রেনটি দাঁ‌ড়িয়ে থাকে। বেলা পৌ‌নে ১২টার দিকে ট্রেন‌টি দিয়াবা‌ড়ীর দিকে ফির‌তি যাত্রা করে।

এর আগে পারফরম্যান্স টেস্টের অংশ হিসেবে দিয়াবাড়ীর উত্তরা সেন্টার, উত্তরা সাউথ, পল্লবী, মিরপুর-১১ হয়ে মিরপুর-১০ নম্বর স্টেশন পর্যন্ত ট্রেন চালানো হয়েছিল। যাত্রীবিহীন অবস্থায় আজ শেওড়াপাড়া ও কাজীপাড়া হয়ে আগারগাঁও পর্যন্ত চললো।

প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে দিয়াবাড়ী থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ২১ দশমিক ২৬ কিলোমিটার মেট্রোরেল পথ (এমআরটি-৬) নির্মাণ চলছে। প্রকল্প পরিকল্পনা অনুযায়ী, ২০২৪ সালে কাজ শেষ হবে। তবে আগামী বছরের ডিসেম্বরে দিয়াবাড়ী থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত পৌনে ১২ কিলোমিটার অংশে ট্রেন চলাচল শুরু হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

রাস্তার মাঝ বরাবর পিয়ারের (খুঁটি) ওপর নির্মিত ভায়াডাক্টে (উড়ালপথ) বসানো রেললাইনে চলবে মেট্রোরেলের ট্রেন। এমআরটি-৬ লাইনে ২৪ সেট ট্রেন চলবে। ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটার গতিতে চলতে সক্ষম এসব ট্রেনে ছয়টি করে বগি আছে। বিদ্যুৎচালিত এ ট্রেনের সামনের ও পেছনের বগিতে থাকবে ইঞ্জিন। ছয় বগিতে ৩১২ জন যাত্রী বসার ব্যবস্থা থাকবে। তবে দাঁড়িয়েই বেশি যাত্রী চড়বে। প্রায় দুই হাজার দাঁড়ানো যাত্রীসহ ট্রেনে সর্বোচ্চ দুই হাজার ৩০৮ জন যাত্রী চড়তে পারবেন।

ডিএমটিসিএল জানায়, ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত আট সেট ট্রেন এসেছে। ১ ডিসেম্বর নবম ও দশম ট্রেন সেট জাপান থেকে জাহাজে বাংলাদেশের উদ্দেশে যাত্রা করেছে। প্রথম ট্রেন সেট গত ২৩ এপ্রিল ঢাকায় আনার পর ৯ মে প্রথমবারের মতো দিয়াবাড়ীতে ডিপোতে চালিয়ে দেখা হয়। ১৯ রকমের টেস্ট শেষে দুই দফা ভায়াডাক্টের ওপর পরীক্ষামূলক চালিয়ে গত ২৩ অক্টোবর পারফরম্যান্স টেস্ট শুরু হয়।