তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় এসে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহানায়ক, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করেছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রাম নাথ কোবিন্দ। ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান তিনি। 


বুধবার দুপুর ১২টা ২০ মিনিটের দিকে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে পৌঁছেন রাম নাথ। সেখানে ভারতের রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানান বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানা। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত জাদুঘর ভারতের রাষ্ট্রপতিকে ঘুরিয়ে দেখান। পরিদর্শন শেষে নিজের অনুভূতি তুলে ধরে পরিদর্শন বইয়ে সই করেন রাম নাথ। এরপর ঢাকা সফরের আবাসস্থল হোটেল সোনারগাঁওয়ে যান ভারতের রাষ্ট্রপতি।

এর আগে বুধবার সকাল সোয়া ১১টার দিকে ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের বিশেষ উড়োজাহাজে করে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেন তিনি। বিমানবন্দরের ভিভিআইপি টার্মিনালে তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও তার সহধর্মিনী রাশিদা খানম। এ সময় কুশল বিনিময় করেন দুই দেশের দুই রাষ্ট্রপ্রধান।

মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে সফরে ঢাকায় পৌঁছার পর হেলিকপ্টারে করে দুপুর ১২টা ৩৫ মিনিটে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে পৌঁছান। সেখানে বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন এবং শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে দর্শনার্থী খাতায় নিজের অনুভূতি লিখেন এবং একটি গাছের চারা রোপণ করেন।

জাতীয় স্মৃতিসৌধে দেশের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন ভারতের রাষ্ট্রপ্রধান। শহীদদের প্রতি সামরিক কায়দায় সশস্ত্র সম্মান জানায় সশস্ত্রবাহিনীর একটি চৌকস দল। এ সময় বেজে উঠে বিউগলের করুণ সুর।


ভারতীয় কূটনীতিক অরিন্দম বাগচী টুইটারে জানান– দর্শনার্থী খাতায় ভারতের রাষ্ট্রপতি লিখেছেন, ‘মুক্তিযুদ্ধে যারা জীবন উৎসর্গ করেছেন তাদের চেতনা আমাদের চিন্তা ও কর্মে অব্যাহত থাকুক।’ স্মৃতিসৌধে রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে ছিলেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। 

বিকেলে সাড়ে ৪টার দিকে প্রেসিডেন্ট রামনাথের সঙ্গে দেখা করতে হোটেল সোনারগাঁওয়ে যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে সফররত রাষ্ট্রপতির সম্মানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও নৈশভোজের আয়োজন করেছেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ। সেখানেও স্ত্রী, কন্যা ও সফরসঙ্গীদের নিয়ে যোগ দেবেন ভারতের প্রেসিডেন্ট।

করোনাভাইরাস মহামারি শুরুর পর এটাই কোবিন্দের প্রথম বিদেশ সফর। বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে বাংলাদেশের মহা আয়োজনে অন্যতম আমন্ত্রিত অতিথি তিনি।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের আমন্ত্রণে এই সফরে ১৫-১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ঢাকায় থাকবেন রামনাথ। তার সঙ্গে রয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্রসচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলাও। রামনাথ কোবিন্দের সফরকালীন দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে।

বৃহস্পতিবার সফরের দ্বিতীয় দিন জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে বিজয় দিবসের সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ‘গেস্ট অফ অনার’ হিসেবে অংশ নেবেন রামনাথ। এ দিন বিকেলে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত ‘মহাবিজয়ের মহানায়ক’ অনুষ্ঠানেও অংশ নেয়ার কথা রয়েছে তার।

শুক্রবার সকালে রমনা কালীমন্দির পরিদর্শনে যাবেন ভারতের রাষ্ট্রপতি। সেখানে সদ্য সংস্কারকৃত অংশ উদ্বোধন করবেন তিনি। মন্দিরসংশ্লিষ্ট কমিটির সদস্যদের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত পরিসরে মতবিনিময়েরও কথা রয়েছে তার। এদিন দুপুরে দেশের উদ্দেশে উড়াল দেবেন।