রাজধানীর মিরপুরে প্রাইভেটকারের চাপায় প্রকৌশলী মহিতুল আহমেদ রনির (৪২) নিহত হওয়ার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন স্বজনরা।  শুক্রবার তার পরিবার, এলাকাবাসী ও বন্ধুমহল আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে এই দাবি করা হয়। দুর্ঘটনাস্থলের অদূরে মিরপুরের রাইনখোলায় এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

রনি ছিলেন ভিস্তা সফ্‌ট আইটি নামে একটি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান। তিনি ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন অব বাংলাদেশের (আইইবি) নির্বাচিত সদস্য ও বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের সভাপতি ছিলেন। ১৪ ডিসেম্বর বিকেলে রাইনখোলায় নিজের অফিস থেকে বেরিয়ে রাস্তায় নামতেই একটি প্রাইভেটকার তাকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

তার পরিবার ও বন্ধুরা এই ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড বলে অভিযোগ করে আসছে। তাদের অভিযোগ, রনিকে গাড়িচাপা দেওয়ার পর স্থানীয় লোকজন গাড়িটির চালক ইমরান মাহমুদকে হাতেনাতে ধরে। পুলিশ তাকে থানায় নিয়ে আটক রাখলেও পরের দিন সকালে ছেড়ে দিয়ে কাজী তৌহিদুল আলম নামে অন্য একজনকে আসামি করে গ্রেপ্তার দেখায়।

রনির একজন স্বজন বলেছেন, ইমরান প্রভাবশালী। তার ড্রাইভিং লাইসেন্স নেই। তাই তাকে ছেড়ে দিয়ে গাড়িতে থাকা সহকর্মী তৌহিদকে আসামি করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে দু'জনের বিরুদ্ধে মামলা করতে চাইলেও পুলিশ তা নেয়নি।

শুক্রবার মানববন্ধনে অংশ নিয়ে রনির বড় বোনের স্বামী ঢাকা শিশু হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক আবু তইয়্যব বলেন, আমরা রনির মৃত্যুর সঠিক তদন্ত ও বিচারের দাবি জানাচ্ছি। এই ঘটনায় জড়িত আসামিকে অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তিরও দাবি জানান তিনি।

এদিকে মিরপুর থানা পুলিশ জানিয়েছে, ওই দুর্ঘটনায় অভিযুক্ত তৌহিদ রনিকে চাপা দেওয়ার কথা স্বীকার করেছে। ঘটনার পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আসামি কারাগারে আছে।