রাজধানীর খিলক্ষেতে পাপিয়া (১১) নামের এক শিশু গৃহকর্মীর লাশ উদ্ধারের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে গৃহশ্রমিক অধিকার প্রতিষ্ঠা নেটওয়ার্ক। একই সঙ্গে ঘটনায় দায়ী ব্যক্তিকে দ্রুত বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেওয়ার মধ্য দিয়ে এ ধরনের ঘটনা বন্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সরকার ও প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সংগঠনের নেতারা। 

বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ আহ্বান জানানো হয়।

বিৃবতিতে বলা হয়, খিলক্ষেতের লেকসিটি কনকর্ড এলাকার বাসন্তী ভবনের দশ তলার একটি ফ্ল্যাটে দুই বছর ধরে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করে আসছিল পাপিয়া। বুধবার বাসার দরজা ভেঙে শিশুটিকে গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় ঝুলতে দেখেন। এরপর পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরির পর লাশ মর্গে পাঠায়।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে গৃহকর্মে নিযুক্ত শ্রমিকের উপর নির্যাতন, হত্যা, ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতো প্রভৃতি ঘটনা উদ্বেগজনক ভাবে বেড়ে গেছে। গৃহশ্রমিক হিসেবে যেমন তাদের রয়েছে কিছু ন্যায্য অধিকার তেমনি রয়েছে মানুষ হিসাবে মর্যাদা পাবার অধিকার। যদিও করোনাকালে গৃহশ্রমিকরা সরকারি ও বেসরকারি পর্যায় থেকে তেমন কোনো সাহায্য বা সহযোগিতা পায়নি এবং তাদের একটা বড় অংশই চাকরিচ্যুত এবং কর্মহীন। ফলে তাদের বেঁচে থাকাটাই এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে তাদের ওপর এ ধরনের সহিংসতার ও নির্যাতনের ঘটনা অমানবিকতার চরম নিদর্শন।